June 24, 2024, 12:58 pm

বিজ্ঞপ্তি :
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দ্বায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
শিরোনাম :
নড়াইলে আ. লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হচ্ছে ঝিনাইদহের সড়কে ভ্রাম্যমাণ আদালত ৭৯ হাজার টাকা জরিমানা শৈলকুপায় ট্রান্সফরমার লাগাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে লাইনম্যানের মৃত্যু পাইকগাছার ১০ হাজার কৃষকের মাঝে নারিকেল চারা, বীজ ও রাসায়নিক সার বিতরণ আওয়ামী লীগ দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করেছে…. এমপি রশীদুজ্জামান সলঙ্গায় সরকারি রাস্তা হতে মাটি কাটার অভিযোগ সিরাজগঞ্জে ট্রাকের চাকায় পৃষ্ঠ হয়ে বৃদ্ধের মৃত্যু মোরেলগঞ্জে আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন উপলক্ষে আনন্দ র‍্যালি শাজাহানপুরে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দোয়া মাহফিল বর্নাঢ্য আয়োজনে আগৈলঝাড়ায় আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
গোদাগাড়ীর জৈটাবটতলা দিঘা গ্রামের হাসমত আলীর বাগানে নতুন জাতের আমের খোঁজ পাওয়া গেছে

গোদাগাড়ীর জৈটাবটতলা দিঘা গ্রামের হাসমত আলীর বাগানে নতুন জাতের আমের খোঁজ পাওয়া গেছে

রাজশাহী থেকে মোঃ হায়দার আলী।।
রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার দিঘা গ্রামে নতুন জাতের আমের সন্ধ্যন পাওয়া গেছে। এ আম নিয়ে মানুষের মাঝে সৃষ্টি হয়েছে নানা কৌতূহল। চাঁপাইনবাবগঞ্জে নতুন জাতের একটি আমের সন্ধান পেয়েছেন উদ্যানতত্ত্ববিদরা। বরেন্দ্র অঞ্চলের জৈটাবটতলা এলাকার দিঘা গ্রামে হাসমত আলীর বাগানে আমটির খোঁজ পাওয়া গেছে। আমটিকে গত ৪ বছর ধরে পর্যবেক্ষণে রেখেছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টারের উদ্যানতত্ত্ববিদরা।

নাবি জাতের এ আমটি পর্যবেক্ষণ করছেন হার্টিকালচার সেন্টারের সহকারী উদ্যান উন্নয়ন কর্মকর্তা শাহিন সালেহউদ্দিন। তিনি বলেন, ‘গাছটি প্রায় ক্ষিরসাপাত আম গাছের মতো দেখতে। মাঘ-ফাল্গুন মাসের মধ্যে মুকুল আসে।’

তিনি বলেন, ‘সাধারণত এ আম ৫-৬ মাস পর পাকে। আমের খোসা মাঝারি মসৃণ। আমটি পাকলে বোটার দিকে লালচে বর্ণের হয়। আঁটি পাতলা, আর আমে কোনো আঁশ নেই।’
তিনি আরও বলেন, ‘আমটি সর্বোচ্চ ওজন এক কেজিরও বেশি হয়, আর সর্বনিম্ন প্রায় ৪০০ গ্রাম। এ আমের মিষ্টতার পরিমাণ প্রায় ২৪ শতাংশ। ৩-৪ বছর পর গাছে ফলন হবে। ছোটগাছে প্রায় ২০ কেজি আম উৎপাদন হয়। গাছের বয়সের সাথে আমের ফলনও বাড়ে।’

বছর তিনেক ধরে এ বাগানটি দেখভালের কাজ করেন মালি শাহিন আলী। তিনি বলেন, ‘সাধারণত অনান্য আমের মুকলের সময় এ গাছেরও মুকুল দেখা দেয়। মুকুল আসার ৫ থেকে ৬ মাস পর আম পাকতে দেখা যায়।’
চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম বাগান চাষি মেহেদী হাসান বলেন, ‘আমটি নতুন জাতের, স্বাদও ক্ষিরসাপাতের মতো। এ আম যেহেতু দেরিতে (বিলম্ব) পাকে তাই লেট ক্ষিরসাপাত নামে আঞ্চলিকভাবে ডাকা হয়। আমটির আকার আকৃতি অনান্য আমের চেয়ে বড়, গোলাকার। এ আমে রোগ বালাই খুব কম।’

৭ বিঘা জমি লিজ নিয়ে আমের বাগান গড়েছেন হাসমত আলী (বাবু)। বলেন, ‘পাঁচ বছর আগে আমার ভাই মাইনুল ইসলামের এক বন্ধু ভারতে এ আম খেয়ে ‍মুগ্ধ হন। ওই গাছের সায়ন (চারা তৈরীর উপযোগী ডগা) সংগ্রহ করে দেশে আনেন। ওই সায়ন দিয়ে একটি কলম বাঁধি। এ আমের চাষাবাদ করে ভালো ফলন পেয়েছি। বাগানে এখন প্রায় ৩০টি গাছ আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘নতুন জাতের আমটি এখনও বাজারে ‍গিয়ে বিক্রি করতে হয়নি। বাগানের আম বাগানে বেচে শেষ হয়ে যায়। এ বছরে এ আম পাঁচশ টাকা কেজি করে প্রায় ১০ হাজার টাকার আম বিক্রি করেছি। এ নতুন জাতের আম গাছের চারা নেওয়ার জন্য অর্ডার দিলে, চারা বিক্রি করা হয়। প্রতিটি চারার মূল্য ১ হাজার টাকা।’

চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচারের উপপরিচালক কুমার প্রামাণিক বলেন, “আমটির স্বাদগুণ ক্ষিরসাপাত আমের সঙ্গে তুলনা করা যায়। বলা চলে, অসময়ের ক্ষিরসাপাত আম। জেলা প্রশাসক কাছে আমটির নাম ‘কল্যাণ ভোগ’ রাখার জন্য প্রস্তাব পাঠিয়েছি।”

মোঃ হায়দার আলী
রাজশাহী।

Please Share This Post in Your Social Media






© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD