শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৪০ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দ্বায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
শিরোনাম:
জন্মাষ্টমীর আলোচনা সভায় এমপি বাবু; অসাম্প্রদায়িক সমাজ গড়ার অঙ্গীকার নিয়ে শেখ হাসিনা রাষ্ট্র পরিচালনা করছেন ঝড় হাওয়া, বৃষ্টিতে গোদাগাড়ীর মোশড়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসাসহ ঘরবাড়ীর ব্যপক ক্ষতি রাজশাহীর গোদাগাড়ীসহ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্ত পথে দিয়ে আসছে মাদক বিনিময়ে যাচ্ছে সোনা। আহম্মদপুরে আওয়ামীলীগের নতুন অফিস উদ্বোধন সুজানগরে স্বেচ্ছাসেবক দলের ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত জনতার দোরগোড়ায় পুলিশি সেবা,ময়মনসিংহে ওসি কামালের সফলতার ১বছরে খুশী সেবা গ্রহীতারা ময়মনসিংহে বিদায়ী পুলিশ সুপার আহমার উজ্জামান কে কোতোয়ালি পুলিশের সংবর্ধনা।। শেখ হাসিনার ভিশন বাস্তবায়নে তৃর্ণমুল থেকে দলকে শক্তিশালী করতে চান সোমনাথ সাহা।। সামাজিক সংগঠন “সেইভ দ্যা হাঙ্গার পিপল” এর কার্যকরী কমিটি গঠিত ত্যাগীরাই পারবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে; সুবিধাবাদীরা নয়
বানারীপাড়া থেকে কুড়িয়ানার আমড়া-পেয়ারা সহজেই পৌঁছাচ্ছে পদ্মা সেতুর উপর দিয়ে ঢাকায়

বানারীপাড়া থেকে কুড়িয়ানার আমড়া-পেয়ারা সহজেই পৌঁছাচ্ছে পদ্মা সেতুর উপর দিয়ে ঢাকায়

আব্দুল আউয়াল বানারীপাড়া(বরিশাল)প্রতিনিধি:

কুড়িয়ানা থেকে ফিরেঃ

বরিশালের বানারীপাড়া ঘেষা আটঘর-কুড়িয়ানা এলাকার পেয়ারা বাগানে বেড়েছে বেপারীদের আনাগোনা। স্বপ্নের পদ্মা সেতু চালুর পর থেকেই পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি (নেছারাবাদ) উপজেলার দূরের জেলায় পেয়ারা পাঠাতে এখন আর পথে পঁচার ভয় নেই খুব কম সময়ে পৌছে যাচ্ছে ঢাকায়। খুব সকালে পেয়ারার হাট বসে বানারীপাড়ার রায়ের হাট থেকে ট্রাকে করে নেয়া হচ্ছে পেয়ারা ও আমড়া বিভিন্ন স্থানে। উপজেলার আটঘর-কুড়িয়ানার পেয়ারা চাষি ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে। আগে পিরোজপুরের বাসিন্দাদের ঢাকা যেতে সড়ক পথে সময় লাগতো ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা, এখন তিন থেকে চার ঘণ্টায় পৌঁছানো যাচ্ছে। আর পেয়ারা, আমড়া, কলাসহ অন্যান্য পণ্য পরিবহনেও সাড়ে ৪ থেকে সাড়ে ৫ ঘণ্টার বেশি লাগছে না। পিরোজপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারন অফিস সূত্রে জানা গেছে, পিরোজপুরের ৬ লাখ কৃষক প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে লাভবান হবেন পেয়ারা চাষে। জেলার প্রধান অর্থকরী ফসলের তালিকায় ধানের পরে রয়েছে পেয়ারা, আমড়া, কলা। পেয়ারা চাষ হয় শুধু স্বরূপকাঠিতে আর এরপরেই রয়েছে আমড়া। স্বরূপকাঠি উপজেলা সহকারী কৃষি কর্মকর্তা রক্তিম কুমার ঘরামী বলেন, স্বরূপকাঠির ২ হাজার পরিবার পেয়ারা চাষে জড়িত। এছাড়া বরিশালের বানারীপাড়া ও ঝালকাঠির বেশ কিছু এলাকার লোক পেয়ারা চাষে জড়িত।উপজেলা কৃষি বিভাগের সূত্র মতে, বর্তমানে স্বরূপকাঠি উপজেলার প্রায় ৬ শ ৫০ হেক্টর জমিতে ২ হাজার ২৫টির মতো বাগান রয়েছে। এ বাগানে প্রতি বছরই পাঁচ থেকে ছয় কোটি টাকার পেয়ারা উৎপাদিত হয়। যাতায়াত ব্যবস্থা ভালো না থাকায় এতোদিন প্রতিমণ পেয়ারা দেড় শ থেকে দুই শ টাকায় বিক্রি করতে হয়েছে চাষিদের। চাষিরা মধ্যসত্ত¡ভোগীদের মাধ্যমে যাত্রীবাহী লঞ্চে বা ট্রলারে করে পেয়ারা ঢাকা পাঠাতেন। এতে যেমন সময় লাগতো ১২ থেকে ১৬ ঘণ্টা, তেমনি তরতাজা ফলটিও অনেক সময় পেকে যেতো বা পচে যেতো। এখন পদ্মা সেতুর কারণে সড়ক পথেই চাষিরা সরাসরি দ্রুত পচনশীল এ পণ্যটি ঢাকাসহ অন্যান্য এলাকায় পৌঁছাতে পারছেন। সড়ক পথে তাদের খরচও কম হচ্ছে। স্বরূপকাঠির কুড়িয়ানা এলাকার কালীপদ হালদার জানান, বাগান করার তিন বছরের মধ্যে আমড়ার ফলন পাওয়া যায়। একনাগারে ১৫ থেকে ২০ বছর পর্যন্ত আমড়ার উৎপাদন হয়। প্রতিমণ আমড়া ৭০০ থেকে ৮০০ টাকায় বিক্রি হয়। যাত্রীবাহী লঞ্চ অথবা সড়ক পথে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হয় পণ্যটি। এতে চাষিরা বেশি লাভবান হতে পারতেন না। এখন পদ্মা সেতু হওয়ায় আমড়া অল্প সময়ের মধ্যেই পাঠানো যাবে ঢাকায়। চাষিরা নিজেরাই আমড়া ঢাকা ও চট্টগ্রামে বড় বাজারগুলোতে বিক্রি করতে পারবেন। এতে মধ্যসত্ত¡ভোগীদের সহযোগিতার প্রয়োজন হবে না। লাভও বেশি হবে বলে জানিয়েছেন চাষিরা। বর্ষা মৌসুমে এখানকার উৎপাদিত পেয়ারা, আমড়া, লেবু ও কলা ট্রাক বা ট্রলারযোগে ঢাকা পৌঁছাতে ১৬ থেকে ২৪ ঘণ্টা সময় লাগতো। এ সময়ের মধ্যে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পেয়ারা পেকে যেতো, অনেক সময় পচেও যেতো। আর আমড়াও পেকে যেতো। ফলে পাইকারি এবং খুচরা বিক্রেতা উভয়েই আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হত। পদ্মা সেতু চালুর ফলে এখন আর আমড়া ও পেয়ারাসহ কৃষিপণ্য পঁচার আশংকা নেই। কুড়িয়ানা ইউনিয়নের জিন্দাকাঠী এলাকার পেয়ারা চাষি দিলীপ মজুমদার জানান, তিনি ৯ বিঘা জমিতে পেয়ারার চাষ করেছেন। গত বারের চেয়ে এবারের ফলন ভালো কিন্তু সময়মতো বৃষ্টি না হওয়ার কারণে পেয়ারার সাইজ ছোটো হয়েছে।স্থানীয় ফল ব্যবসায়ী তাপস বড়ালের বাড়ি উপজেলার মাহামুদকাঠী এলাকায়। বাগান থেকে পেয়ারা কিনে ঢাকায় পাঠান তিনি। প্রায় ২০ বছর ধরে পেয়ারা, আমড়ার মৌসুমে এ কাজটি করছেন তিনি। ‘পদ্মা সেতু আমাদের জন্য আশীর্বাদ। প্রতিবছর এই মৌসুমে ঢাকায় পেয়ারা পাঠাতে গিয়ে পদ্মার এপারে ঘাটে ট্রাক বোঝাই পেয়ারা আটকা পড়ে পচে যায়।গত মৌসুমে ৭ থেকে ৮ ট্রাক পেয়ারা আটকা পড়ে পচে গেছে। একারণে লোকসান গুনতে হয়েছে’— জানান তাপস বড়াল। এরপর তিনি বলেন, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর এ পর্যন্ত ৭ ট্রাক পেয়ারা ঢাকায় পাঠিয়েছি। সব পেয়ারাই তাজা অবস্থায় পাঠানো গেছে। এখন আর পচার ভয় নেই।লক্ষীপুর জেলার কমলনগর উপজেলার চরলরেঞ্জ ইউনিয়নের শহীদনগর এলাকার আলাউদ্দিন বাবুলের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, তিনি ১২ বছর ধরে এখান থেকে পেয়ারা কিনছেন। পদ্মা সেতু হওয়ার কারণে এখানে বেপারী বাড়ছে আর পেয়ারার দামও বাড়ছে। বর্তমানে পেয়ারা মণপ্রতি ৫ শ ৫০ টাকা দরে কিনছেন। গেলো বছর এই সময় পেয়ারার মণ ছিল ২ শ থেকে ৩ শ পঞ্চাশ টাকা।আটঘর বাজারে থাকা আড়ৎদার মোশারেফ মলি­ক জানান, পদ্মা সেতু হওয়ার কারণে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় পেয়ারা পাঠানো সহজ হয়েছে।স্বরূপকাঠি উপজেলার কুড়িয়ানা ইউপি চেয়ারম্যান মিঠুন হালদার বলেন, এখন ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার মানুষ টাটকা পেয়ারা খেতে পারবে। মানুষজন ঝক্কি-ঝামেলা ছাড়া সহজেই পেয়ারা বাগানে ঘুরতে আসতে পারবে। তিনি বলেন, পেয়ারার মৌসুমে পদ্মা থাকে উত্তাল। অনেকেই ভয়ে আসতে চাইতেন না। সরাসরি সড়ক পথে আসার সুযোগ হওয়ায় পর্যটকদের সেই ভয় এখন আর নেই। তিনি আরও জানান, বিভিন্ন সময়ে পেয়ারা বাগানে ঘুরতে এসেছেন আমেরিকার রাষ্ট্রদূত, ভারতের রাষ্ট্রদূত, বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্মকর্তাসহ দেশি-বিদেশি পর্যটকরা।স্বরূপকাঠি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম মুইদুল ইসলাম বলেন, পেয়ারা বাগানকে কেন্দ্র করে প্রতিবছর জমে ওঠে ভাসমান পেয়ারার হাট। শুধু পেয়ারা নয় ভাসমান হাটে বিক্রি হয় নানা ধরনের কৃষিপণ্য । এ হাট দেখতে বর্ষা মৌসুমে প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটক আসে। পদ্মা সেতুর কারণে পর্যটকের সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। এরপর তিনি বলেন, পেয়ারা ছাড়াও সুস্বাদু ও পুষ্টিকর ফলের তালিকায় রয়েছে আমড়া। ফরমালিনমুক্ত ফলটি সবাইরই প্রিয়। চাষ লাভজনক হওয়ায় পেয়ারার পাশাপাশি কৃষকরাও ঝুঁকছেন আমড়া চাষে। জেলার চাহিদা মিটিয়ে আমড়া পাঠানো হচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। প্রতি বছর আমড়া বিক্রি করে চাষিরা কয়েক কোটি টাকা আয় করছেন।

আব্দুল আউয়াল
বানারীপাড়া(বরিশাল)প্রতিনিধি।

Please Share This Post in Your Social Media






© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD