May 19, 2024, 1:38 pm

বিজ্ঞপ্তি :
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দ্বায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
শিরোনাম :
সুজানগরে ১৪ বছরের এক কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগ পদোন্নতি পেয়ে সিনিয়র সহকারী সচিব হলেন তেঁতুলিয়ার এসিল্যান্ড মাহবুবুল হাসান ঝিনাইদহে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আহত ২১ গোদাগাড়ীতে ডিজিটাল প্রিপেইড মিটার স্থাপন বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন উপজেলা চেয়ারম্যান ময়নাকে গণসংবর্ধনা আশুলিয়ায় সন্ত্রাসী কায়দায় হামলা-কুপিয়ে এক যুবক আহত ও নারীদের শ্লীলতাহানির অভিযোগ ঝড়-বৃষ্টি আঁধার রাতে, জনগণ আছে শেখ হাসিনার সাথে- প্রতিমন্ত্রী শহীদুজ্জামান সরকার তেঁতুলিয়ায় পুরোনো ইট দিয়ে বাজার সেড নির্মাণ নড়াইলে বিলুপ্তির পথে বাবুই পাখির বাসা সাতক্ষীরার তালায় ট্রাক উল্টে ২ শ্রমিক নিহত আহত ১১
নেছারাবাদে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে স্বর্ণালংকার সহ দুই লক্ষ টাকার চু*রির অভিযোগ

নেছারাবাদে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে স্বর্ণালংকার সহ দুই লক্ষ টাকার চু*রির অভিযোগ

আনোয়ার হোসেন,
নেছারাবাদ উপজেলা প্রতিনিধি //

পিরোজপুরের নেছারাবাদ উপজেলার বলদিয়া ইউনিয়নে বেপারী বাড়িতে খাবারের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটেছে। গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতের এ ঘটনায় প্রায় নগত ২ লক্ষটাকা, ৫ ভরি স্বর্ন এবং মালামাল চুরি হয়েছে বলে জানা যায়। ওই পরিবারের ৪ সদস্যকে অচেতন অবস্থায় নেছারাবাদ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে স্থানীয়রা।

১৬ ই নবেম্বর বৃহস্পতিবার রাত্রে এ ঘটনা ঘটে। অসুস্থরা হলেন, বলদিয়া ইউনিয়নের উরিবুনিয়া গ্রামে মৃত শিল্পি খালেকের স্ত্রী লাইলি বেগম, মেয়ে লিপি খানম ও তার দুই ছেলে মোঃ জুবায়ের এবং মোঃ জুনায়েদ।

এদের মধ্যে লাইলি বেগম এর অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিলো, তিনদিন পর্যন্ত তারা উভয়ই নেছারাবাদ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন।

হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় লিপি বেগম জানান,রাত সাড়ে নয়টার দিকে আমার মা ভাত খাওয়া পরে বলে আমাকে ঘুরায় কেন? আমি মনে করছি মা আগে থেকে অসুস্থ ছিলো হয়তো সে কারনে ঘুরাচ্ছে। মা ঘুমিয়ে পড়ার পরে ছোট ছেলেকে ভাত দেই। সেও ভাত খেয়েই ঘুমিয়ে পড়ে।এর পড়ে আমি এবং বড় ছেলে খাওয়া দাওয়া করি।খাওয়ার সাথে সাথে আমি ঘুমিয়ে পড়ে যাচ্ছিলাম বড় ছেলেকে বললাম দরজাটা দিয়ে আয় বাবা ও দরজা দিতে পারছিলো কিনা তাও জানিনা।এর পরে আর কিছু বলতে পারছিনা। সকালে এগারোটা বড় ভাই এসে আমাদের অচেতন অবস্থায় দেখতে পায়।

লিপি বেগম আরো জানায় আমার সব কিছু নিয়ে গেছে ঘরে থাকা ৫ ভরি স্বর্ন এবং আমার এবং মায়ের দুই লক্ষ ছিলো তাও নিয়ে গেছে।সব কিছু ভেঙে তছনছ করে রেখে গেছে।

লিপির বিদেশে ফেরত স্বামী এখন ঢাকায় একটি জাহাজে কাজ করে বাড়ি সুটিয়াকাঠি।সে বাড়িতে না থাকার কারনে লিপি বেগম বাবার বাড়ি উরিবুনিয়া থাকতো।

লিপির বড় ভাই ফোরকান মওলানা ,সকাল ১১টার সময় অজ্ঞান অবস্থায় দেখতে পায়। সে জানায় আমি ঘরে গিয়ে দেখি সকলে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে আছে মায়ের অবস্থা বেশি খারাপ হয়ে গেছিলো দ্রুত দেরি না করে সবাইকে নেছারাবাদ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাই।

এ বিষয়ে নেছারাবাদ থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আব্দুর রহিম জানান, আমি ঘটনা স্থলে গিয়েছিলাম সব কিছু দেখে আসেছি বিষয়টি তদন্তাধীন অবস্থায় আছে।

নেছারাবাদ থানার ওসি গোলাম সরোয়ার জানান, খবর পেয়েই আমাদের অফিসার কে সেখানে পাঠিয়েছি।এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি অভিযোগ পেলে ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media






© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD