April 21, 2024, 5:23 am

বিজ্ঞপ্তি :
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দ্বায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
শিরোনাম :
নড়াইলে চিত্রশিল্পীদের হাতে চিত্রকর্মের সম্মাননা স্মারক ক্রেস্ট প্রদান নড়াইলে পৃথক অভিযানে একাধিক মামলায় দুইজন সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার সুজানগরে তীব্র দাবদাহে অগভীর নলকূপে উঠছে না পানি, জনদুর্ভোগ চরমে কালীগঞ্জে ৪০০বোতল ফেনসিডিল, ৪টি  হুইসকিসহ স্বরসতি রাণী,গ্রেফতার কাল‌কি‌নি সা‌হেবরামপু‌রে আল-আযাহার ক্যাডেট মাদ্রাসার শুভ উদ্বোধন ইপিজেড থানা পুলিশের অভিযানে ৫০ লিটার দেশীয় তৈরী চোলাই মদ সহ ০১(এক) মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। বরগুনায় এনসিটিএফ এর ত্রৈমাসিক সমন্বয় ও বিদায়ী সভা অনুষ্ঠিত হয় খাগড়াছড়িতে এসএসসি ২০০৭ ও এইচএসসি ২০০৯ এর মিলন মেলা অনুষ্ঠিত বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে অবৈধ অস্ত্রসহ র‌্যাবের হাতে আটক-২ বাবুগঞ্জে আদালতের আদেশকে অমান্য করে পাকা স্হাপনা তৈরি
সুজানগরে দেদারসে ইটভাটায় পুড়ছে কাঠ: দেখার কেউ নেই

সুজানগরে দেদারসে ইটভাটায় পুড়ছে কাঠ: দেখার কেউ নেই

এম এ আলিম রিপন সুজানগর (পাবনা) ঃ নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে পাবনার সুজানগর উপজেলার বেশিরভাগ ইট ভাটায় প্রকাশ্যে কাঠ পুড়িয়ে তৈরি করা হচ্ছে ইট। দেদারছে কাঠ পোড়ালেও সেটা দেখার কেউ নেই। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন ভাটা মালিক জানান, তারা বিভিন্ন সময় সরকারি, বেসরকারি, দলীয় ও সামাজিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে মোটা অংকের চাঁদা দিয়ে থাকেন। তাই তাদের ভাটাগুলোতে অবৈধভাবে কাঠ পোড়ানো সহ ভাটার অন্য নিয়ম ভহির্ভূত কোন কর্মকান্ডেই তেমন কোন অসুবিধা হয় না।। তার মতে, পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নিতে খাজনার চেয়ে বাজনাই বেশী হয়। ইটভাটা সংক্রান্ত আইন কানুন সহজ করা হলে একদিকে যেমন আমাদের ব্যবসা পরিচালনা করা সহজ হবে,তেমনি সকলেই সরকারি আইন মেনে চলতে পারবেন। জানা যায়,সরকারি নিয়মনীতি না মেনে সুজানগর উপজেলায় অবৈধভাবে তিন ফসলি কৃষি জমি গ্রাস করে গড়ে উঠেছে ১০টির অধিক ইটভাটা । অবৈধভাবে গড়ে উঠা এসকল ইটভাটার কারণে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছে কৃষি জমিতে ফসল উৎপাদনকারী কৃষকেরা,কমেছে কৃষি জমি,বাড়ছে পরিবেশ দূষণ । ইট প্রস্তুত ও ভাটা (নিয়ন্ত্রণ) আইন অনুযায়ী কৃষি জমি,শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বনভূমি,অভয়ারণ্য,জনবসতিপূর্ণ ও আবাসিক এলাকায় ও বছরে একের অধিক উৎপাদিত ফসলী কৃষি জমিতে ইটভাটা স্থাপন করা নিষেধ রয়েছে । কিন্তু সে আইন লঙ্ঘন করে সুজানগর উপজেলার প্রভাবশালী ব্যাক্তিরা গড়ে তুলেছেন ইটভাটা। এতে ভাটা থেকে নির্গত ধোঁয়া অতি সহজেই লোকালয় ও ক্ষেত-খামারে ছড়িয়ে পড়েছে। ফলে বিপর্যস্ত হচ্ছে পরিবেশ। দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে জনজীবন। শুধু তাই নয় গ্রামীণ রাস্তা ব্যবহার করে ভারী যানবাহন দিয়ে ইট ও ইট তৈরির কাঁচামাল পরিবহন করায় ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে পাকা রাস্তা। সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, ইটভাটা তৈরি করতে হলে ট্রেড লাইসেন্স,বিএসটিআই এর সনদ, পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র,জেলা প্রশাসক প্রদত্ত লাইসেন্স, কৃষি অধিদপ্তরের প্রত্যয়ন পত্র সহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে ইটভাটা স্থাপন করতে হয়। কিন্তুু উপজেলার বেশিরভাগ ইটভাটারই লাইসেন্স সহ প্রয়োজনীয় অন্যান্য কাগজপত্র নেই। উপজেলা ইটভাটা মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ আলী জানান, উপজেলায় সর্বমোট ১৫টি ইটভাটা রয়েছে এর মধ্যে এ মৌসুমে ৬টি ভাটা বন্ধ থাকলেও চালু রয়েছে ০৯টি। আর এসকল ভাটার মধ্য যাদের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র রয়েছে,সে সকল ভাটা মালিক প্রতি বছর লাখ লাখ টাকা ভ্যাট দিচ্ছে সরকারকে। অথচ অবৈধভাবে গড়ে উঠা ভাটাগুলো থেকে সরকার প্রতিবছর কোটি কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে। শুধু তাই নয় নিয়মানুযায়ী প্রতিটি ইটের পরিমাপ ৭.৩০ এবং ৩.৭৫ ইি হওয়ার কথা থাকলেও ইটভাটানিয়মনীতি উপেক্ষা করে এক শ্রেণীর ভাটা মালিক তাদের ইচ্ছেমত ইটের ওজন ও সাইজ তৈরি করে অবাধে বিক্রি করছেন। উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ রাফিউল ইসলাম জানান, উপজেলায় যে কৃষি জমি রয়েছে সে সকল জমির বেশিরভাগই দুই বা তিন ফসলী জমি, আর এ ধরনের জমিতে ইটভাটা করার কোন নিয়ম নাই। কৃষি জমিতে এ ধরনের ইটভাটা করায় কমেছে পাট,পেঁয়াজ,ধান ও গমের উৎপাদন । জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিদর্শক জিএম নজরুল ইসলাম জানান, ভাটাগুলো অবৈধ জেনেও তাদের হাতে বিচারিক ক্ষমতা না থাকায় তারা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে পারছেন না । এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) মো. তরিকুল ইসলাম শনিবার জানান, ইটভাটায় কাঠ পোড়ানোর কোন সুযোগ নেই। খুব দ্রুত পরিদর্শন করে যে সকল ইটভাটার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নেই সেই সকল ইট ভাটার বিরুদ্ধে আইনগত কঠোর ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

এম এ আলিম রিপন
সুজানগর(পাবনা)প্রতিনিধি।

Please Share This Post in Your Social Media






© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD