সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দ্বায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
শিরোনাম:
সংবাদ প্রচারের পর শেখ ফজিলেতুন্নেছা দাখিল মাদরাসা এমপিওভুক্ত ও জাতীয়করণ শৈলকুপায় বাস চাপায় বাইসাইকেল আরোহী কৃষক নিহত পাইকগাছার সোলাদানা ইউনিয়নে মরা কুচিয়া নদীর উপর ঝুঁকিপূর্ণ ব্রীজ; দূর্ঘটনার আশংখা প্রধান শিক্ষক যায় আর আসে বদলগাছীতে স্কুলের মালামাল চুরি ও লুটপাটের অভিযোগ সহাকারী শিক্ষক ও দপ্তরীর বিরুদ্ধে নড়াইলে প্রতিবন্ধীর মৃত্যু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ আটক ১২জন র‌্যাব-১২’র অভিযানে সিরাজগঞ্জের সদরে ০১ গ্রাম হেরোইন ও ৩৭ পিচ ইয়াবাসহ ০১ জন শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী আটক। জাতীয় শোক দিবস পালনে আমিনপুরে প্রস্তুতিমূলক সভা জাতীয় শোক দিবস পালনে আমিনপুরে আ.লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা বীরগঞ্জে জাতীয় পাটির বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত ৪দিন পেরিয়ে গেলেও মালামাল উদ্ধারে ব্যর্থ পুলিশ বগুড়া-ঢাকা মহাসড়কে পুলিশের উপস্থিতিতেই মোবাইল ও টাকা ছিনতাই
এমপিও ভুক্ত বিদ্যালয়ের আছে নতুন ভবন শ্রেনি কক্ষে শিক্ষার্থী শুন্য

এমপিও ভুক্ত বিদ্যালয়ের আছে নতুন ভবন শ্রেনি কক্ষে শিক্ষার্থী শুন্য

মোঃ বাবুল হোসেন পঞ্চগড় :
পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার ছেপড়াঝার আদর্শ নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ক্লাশে আসেনা কোন শিক্ষার্থী, তবুও এমপিওভুক্ত হয়েছে বিদ্যালয়টি।

গত ৬ জুলাই প্রকাশিত এমপিওভুক্তির তালিকায় নাম এসেছে বিদ্যালয়টির। এমন খবরে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা আনন্দিত হলেও বিস্মিত এলাকার অনেকেই।
এলাকাবাসীর অভিযোগ, মাঝে মধ্যে বিদ্যালয়টি অফিস খোলা হলেও নেই কোনো ছাত্র-ছাত্রী। এই প্রতিষ্ঠানটি কীভাবে এমপিওভুক্ত হয়।
সরেজমিনে মঙ্গলবার দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়টি খোলা থাকলেও ক্লাশে নেই কোন শিক্ষার্থী।

প্রতিবেদক বিদ্যালয়ে যাওয়ার পরে তিনজন শিশু-কিশোরকে বিদ্যালয়ে ডেকে আনেন অফিস সহায়ক দাইমুল ইসলাম। পরে একটি শ্রেণি কক্ষে তাদের বসিয়ে দিয়ে একটি করে ৬ষ্ঠ, ৭ম ও ৮ম শ্রেণির বই দিয়ে বসিয়ে দেওয়া হয়। এসময় তাদের কাছে ছিলোনা কোন খাতা, কলম।
বাধন নামে এক কিশোর বলেন, আমি স্কুলের পাশে খেলা করতেছি, স্যার আমাকে ডেকে এনে ক্লাশে বসতে বলল।
বিদ্যালয়ের পাশের বাড়ির জীবন নামে এক ব্যক্তি বলেন, এই স্কুলে কিছু ছাত্র/ছাত্রী আছে তারা একসাথে দুই স্কুলে ভর্তি হয়ে আছে। তারা অন্য স্কুলে ক্লাশ করে।
এসময় বিদ্যালয়ে দায়িত্বে থাকা সহকারী শিক্ষক ইসমাঈল হোসেন বলেন, আমরা স্কুল টিফিন দিয়েছি, সবাই বাড়িতে গেছে। তবে কখন টিফিন দিয়েছেন তার সঠিক উত্তর দিতে পারেনি।
এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মজিবর রহমান মুঠোফোনে জানান, আমি বাইরে আছি, আপনারা কি পারেন লিখেন।
এ বিষয়ে জেলা শিক্ষা অফিসার শাহীন আকতার বলেন, বিষয়টি আমি তদন্ত করে দেখবো।

Please Share This Post in Your Social Media






© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD