July 18, 2024, 5:24 am

বিজ্ঞপ্তি :
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দ্বায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
শিরোনাম :
পানছড়িতে মা মনসা পুঁথি পাঠের আসর জমে উঠেছে গোপাল হাজারীর বাড়িতে কোট বি*রোধীদের উপর হাম*লার প্রতি*বাদে ঝিনাইদহে ছাত্রদলের বিক্ষো*ভ নবাগত গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে ফুলদিয়ে শুভেচ্ছা জানালেন যুবলীগ সভাপতি তানোরে বঙ্গবন্ধু অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবল টুর্নামেন্ট সম্পন্ন নড়াইল শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র পৌর মেয়র আনজুমান আরা সভাপতি নির্বাচিত বাংলাদেশ জমইয়াতে হিজবুল্লাহর নায়বে আমীর হযরত মাওলানা শাহ মোহাম্মদ মোহেব্বুল্লাহর ইন্তে*কাল ধামইরহাটে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শহীদুজ্জামানের গাছ রোপন লালমনিরহাটে ফেন্সিডিল, মোটরসাইকেলসহ দুইজন আ*টক  পুঠিয়ায় পূর্ব শ*ত্রুতার জেরে মসজিদের ইমামকে হ*ত্যার চেষ্টা নিহ*ত শিক্ষার্থীদের স্মরণে গাজীপুরে গায়েবানা জানাজা
সাতবাড়ীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ভাঙল নবীন-প্রবীণদের মিলনমেলা

সাতবাড়ীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ভাঙল নবীন-প্রবীণদের মিলনমেলা

এমএ আলিম রিপন,সুজানগরঃ পাবনার সুজানগর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী সাতবাড়ীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি উৎসবের নবীন-প্রবীণদের মিলন মেলা শেষ হয়েছে। নবীন-প্রবীণ শিক্ষার্থীদের দুইদিনের এই মিলন মেলায় সতীর্থদের পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়েছেন,অনেকে হেসেছেন,কেঁদেছেন,উচ্ছ্বাসে মেতেছেন। বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করার সময় যাঁরা একসঙ্গে ছিলেন,তাঁরা তাঁদের খুঁুঁজে বের করে সে সময়কার স্মৃতি রোমন্থনে মেতে উঠেন। শতবর্ষের উৎসবের প্রথমদিনে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা হাজারো প্রাক্তন শিক্ষার্থী বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এসে জড়ো হয়। শতবার্ষিকী উৎসব উদযাপন উপলক্ষ্যে গত শনি ও রবিবার দুইদিন ব্যাপী নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। উৎসবকে ঘিরে বিদ্যালয়সহ স্থানীয় রাস্তাগুলো আলোকসজ্জা ও বর্ণিল সাজে সাজানো হয়। বিদ্যালয় থেকে বের করা হয় শতবর্ষ স্মরণিকা। স্মরণিকাটি উৎসর্গ করা হয় যাদের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত সাতবাড়ীয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও মহান স্বাধীনতাযুদ্ধে বিদ্যালয়ের শহীদ ছাত্রদের উদ্দেশে। পাবনা-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র(ব্যাচ-১৯৭৮) আহমেদ ফিরোজ কবির বলেন, ১৯২০ সালে বিদ্যালয়টি সে সময়কার উপজেলার নিভূত পল্লী সাতবাড়ীয়ায় স্থাপিত হলেও কয়েক বছরের মধ্যে বিদ্যালয়টির খ্যাতি সমগ্র পাবনা জেলায় ছড়িয়ে পড়ে। সাফল্যের মূলে ছিলেন কয়েকজন নিবেদিতপ্রাণ ও আদর্শবান শিক্ষক। শত বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে আজ বিদ্যালয় শতবর্ষ পার করেছে। প্রাক্তন ছাত্র হিসেবে আমাদের আনন্দ গভীর ও গর্বের। আমি কামনা করি ,বিদ্যালয়টি যেন আলোকিত মানুষ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যায়। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের উপ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও সাতবাড়ীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র (ব্যাচ-১৯৮৭) ওয়াহিদুজ্জামান লিটন বলেন,আমি শুধুমাত্র আমার প্রাণের স্কুলের শতবর্ষের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র থেকে ছুটে এসেছি। অনুষ্ঠানে আসতে পেরে এবং স্কুল জিবনের বন্ধুদের কাছে পেয়ে কী আনন্দ লাগছে ভাষায় বোঝাতে পারব না। ১৯৮৭ সালে এই বিদ্যালয় থেকে এস এস সি পাশ করেছি। প্রায় ৩৩ বছরের পুরোনো বন্ধুদের কাছে পেয়ে আনন্দে দিশেহারা আমরা। নবীন-প্রবীণ যারা আছেন,তাঁরা সবাই আজ একসঙ্গে মিলিত হয়েছি। তাই আমাদের মধ্যে একটা আনন্দের জোয়ার বয়ে গেছে। যা ভাষায় বর্ণনা করা কঠিন। তিনি আরো বলেন,আমরা আর একশ বছর পাব না । তবে আগামী এক শ বছর যারা এখানে পড়বে ,তাদের জানাই স্বাগত ও শুভেচ্ছা। প্রায় একই ধরণের অনুভূতি ব্যক্ত করেন ১৯৮৭ ব্যাচের তাঁর অপর দুই বন্ধু সেনা অফিসার শাখাওয়াত হোসেন ও দৈনিক যুগান্তরের সার্কুলেশন ম্যানেজার সাইদুল হক। অনুষ্ঠানে উপস্থিত আমন্ত্রিত ব্যক্তিদের মধ্য সুজানগর প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহজাহান আলী ও সাতবাড়ীয়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুস বাছেত বাচ্চু বলেন, এত সুন্দর অনুষ্ঠানে আসতে পেরে আমরা নিজেদেরকে ধন্য মনে করছি। শতবার্ষিকী উৎসবে পাবনা-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র আহমেদ ফিরোজ কবির, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের উপ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও সাতবাড়ীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র ওয়াহিদুজ্জামান লিটন সহ কয়েকজন প্রাক্তন ছাত্রকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। সম্মাননা স্মারক প্রদান করেন বিদ্যালয়ের ১৯৪৭ ব্যাচের প্রাক্তন ছাত্র আব্দুস শুকুর মিয়া ও প্রাক্তন শিক্ষক আমজাদ হোসেন। রবিবার স্মৃতিচারণা, সম্মাননা প্রদান,আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে শেষ হয় সাতবাড়ীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে নবীন-প্রবীণ মিলন মেলার শতবর্ষ উদযাপন। শেষ দিনের অনুষ্ঠানে পাবনা পুলিশ সুপার আকবর আলী মুনসী সহ বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে প্রথম দিনে নিবন্ধিত হয়ে উপহার সামগ্রী গ্রহণের মধ্য দিয়ে দুইদিন ব্যাপী শতবর্ষ উদযাপন অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। সাতবাড়ীয়া উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি এসকে হাবিবুল্লাহ, প্রধান শিক্ষক একেএম সামছুল আলম ও সহকারী প্রধান শিক্ষক শরিফুল ইসলাম জানান, শতবর্ষের অনুষ্ঠানটির আয়োজন করতে আমাদের অক্লান্ত পরিশ্রম হয়েছে। তবে পুরোনো-নতুনদের একসঙ্গে কাছে পেয়ে আমাদের সব ক্লান্তি দূর হয়ে গেছে।

এম এ আলিম রিপন
সুজানগর(পাবনা)প্রতিনিধি।

Please Share This Post in Your Social Media






© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD