July 17, 2024, 11:19 pm

বিজ্ঞপ্তি :
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দ্বায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
শিরোনাম :
পানছড়িতে মা মনসা পুঁথি পাঠের আসর জমে উঠেছে গোপাল হাজারীর বাড়িতে কোট বি*রোধীদের উপর হাম*লার প্রতি*বাদে ঝিনাইদহে ছাত্রদলের বিক্ষো*ভ নবাগত গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে ফুলদিয়ে শুভেচ্ছা জানালেন যুবলীগ সভাপতি তানোরে বঙ্গবন্ধু অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবল টুর্নামেন্ট সম্পন্ন নড়াইল শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র পৌর মেয়র আনজুমান আরা সভাপতি নির্বাচিত বাংলাদেশ জমইয়াতে হিজবুল্লাহর নায়বে আমীর হযরত মাওলানা শাহ মোহাম্মদ মোহেব্বুল্লাহর ইন্তে*কাল ধামইরহাটে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শহীদুজ্জামানের গাছ রোপন লালমনিরহাটে ফেন্সিডিল, মোটরসাইকেলসহ দুইজন আ*টক  পুঠিয়ায় পূর্ব শ*ত্রুতার জেরে মসজিদের ইমামকে হ*ত্যার চেষ্টা নিহ*ত শিক্ষার্থীদের স্মরণে গাজীপুরে গায়েবানা জানাজা
ডিজিটাল প্রতারক চক্র কর্তৃক সাধারণ মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা

ডিজিটাল প্রতারক চক্র কর্তৃক সাধারণ মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা

হেলাল শেখঃ রাজধানীসহ ঢাকার আশুলিয়ায় ই-কর্মাসে ব্যবসায় বিনিয়োগের নামে অনলাইন ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রতারক চক্র কর্তৃক পোশাক শ্রমিকদের কাছ থেকে বিভিন্ন লোভ দেখিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি টাকা। এই প্রতারক চক্রের প্রতিষ্ঠানের মালিকসহ দুইজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ, আদালত থেকে জামিনে এসে নতুন কৌশলে বিভিন্ন মানুষের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়েছে এই চক্রটি।
জানা গেছে, জাতীয় সেবা ‘৯৯৯’ নাম্বার থেকে ফোন পেয়ে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) তামিম তার সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদ এর পাশে নরসিংহপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে জনতার সহযোগিতায় দুইজন প্রতারককে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা হলো-মাদারীপুর জেলা সদর থানার পাঁচখোলা গ্রামের আলী হোসেন মৃধার ছেলে প্রতারক চক্রের মূলহোতা মোঃ ইলিয়াস মৃধা (৩৬), ঝালকাঠি জেলার সদর থানার দক্ষিণ মানকশা গ্রামের আব্দুল জলিল মিয়ার ছেলে মোঃ জাহিদুল ইসলাম (৩২)। আশুলিয়া থানার মামলার আরও আসামী পলাতক রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, গ্রেফতারকৃত প্রধান আসামী ইলিয়াস মৃধা’র স্বাধীন ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অনলাইনে স্বাধীন ই-কমার্স নামে প্রতিষ্ঠান চালাতো কিন্তু এই প্রতিষ্ঠানের বৈধ কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি গ্রেফতারকৃতরা। এই অনলাইন ডিজিটাল প্রতারক চক্রটি আশুলিয়ার সবচেয়ে বড় একটি পোশাক কারখানার প্রায় ৪০জন শ্রমিক কর্মচারিসহ বিভিন্ন সহজ সরল মানুষের কাছ থেকে প্রায় কোটি টাকা প্রতারণামূলক ভাবে হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছিল। ভুক্তভোগীরা ওই প্রতিষ্ঠানের মালিক ইলিয়াস মৃধার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদান করে। এরপর ভুক্তভোগীরা বিভিন্ন স্থানে অনুসন্ধ্যান করে জানতে পারেন যে, ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদের পাশে ইলিয়াস ও তার লোকজনকে দেখা গেছে, এরপর প্রথমে তাদেরকে দেখে আটক করেন ভুক্তভোগীরা, এরপর থানায় মামলা করার জন্য অভিযোগ করেন তারা, এসময় প্রতারক ইলিয়াস মৃধা’র স্ত্রী মোছাঃ ফরিদা বেগম উল্টো জাতীয় সেবা ৯৯৯ এ ফোন দিয়ে জানায় তার স্বামীকে অপহরণ করা হয়েছে। এ দিকে ভুক্তভোগীরা আশুলিয়া থানা পুলিশকে জানায় এবং অভিযোগ করার পরও পুলিশ ঘটনাস্থলে সময়মত না আসার কারণে তারাও ‘৯৯৯’ এ ফোন করে বিষয়টি জানায়, এ খবর পেয়েও যখন পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে না, এরপর ভুক্তভোগী একজন ঢাকা জেলা পুলিশ সুপারকে জানান, সেই সাথে র‌্যাব-১, র‌্যাব-৪ ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাকে জানানো হয়। এরপর আশুলিয়া থানার এসআই তামিম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে আসার পর ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডের মেম্বার জলিল উদ্দিন ভুঁইয়া (রাজন) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং প্রতারকদেরকে থানায় নিতে পুলিশকে সহযোগিতা করেন।
ভুক্তভোগী মোঃ সাজু মিয়া বলেন, একজনের মাধ্যমে তাদেরকে এখানে কয়েক ধাপে প্রায় সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করায়। তারা বলেছিল অনলাইনে ওষুধ বিক্রি করেন। তাদের নম্বর খুলে দেন প্রতিষ্ঠানের মালিক ইলিয়াস। তাদের একটি ওয়েবসাইট আছে বলে জানায়, এরপর একটি আইডি নম্বর খুলে দেন। তারা বিভিন্ন লোভ দেখায়, লাভের একটি অংশ প্রতিদিন আমার সেই অনলাইন আইডিতে জমা হবে বলেন। ভুক্তভোগীরা আরও জানায়, দীর্ঘদিন চলে গেলেও তাদের এইসব আইডিতে কোন টাকা পয়সা দেয় না। ভুক্তভোগীরা এই পরিস্থিতিতে বুঝতে পারেন যে, অনলাইন ডিজিটাল সাইট খুলে প্রতারণার ফাঁদ পেতেছে তারা। ভুক্তভোগীরা আরও জানায়, টাকা চাইতে গেলেই উল্টো হুমকি দামকি দেয় ইলিয়াস ও তার লেঅকজন। এরপর তাদের বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় মামলা করার জন্য লিখিত অভিযোগ করা হয়। এদিকে পুলিশের দাবী- এখন পর্যন্ত ২৪জন ভুক্তভোগীর সন্ধান পেয়েছি। যাদের কাছ থেকে প্রায় ৩৯ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে হিসাব পাওয়া গেছে। পুলিশ আরও জানায় যে, গ্রেফতারকৃত আসামীরা প্রাথমিকভাবে জানিয়েছে, সব মিলিয়ে ভুক্তভোগীদের প্রায় ৬০০জন বিনিয়োগকারী রয়েছে। তাদের কাছ থেকে প্রায় দুই কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে চক্রটি।
উক্ত মামলার তদন্তকারী অফিসার আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুব্রত রায় গণমাধ্যমকে বলেন, অভিযোগ পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে অভিযান পরিচালনা করে মঙ্গলবার রাত ১ টার দিকে দুইজনকে আটক করা হয়। এরপর তাদেরকে প্রতারণা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে বুধবার সকালে দুইজকে আদালতে পাঠানো হয়। জানা গেছে, প্রতারণা করে প্রতিষ্ঠানের মালিক ইলিয়াস মৃধা আশুলিয়ার কাঠগড়া সরকার পাড়া এলাকায় জমি কিনে বাড়ি করে পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছিল দীর্ঘদিন ধরে। ইলিয়াস ডেসটিনি’র কর্মকর্তা হিসেবে চাকুরি করেছেন, ডেসটিনি কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার পর সে এই টেনিং কাজে লাগাতে বিভিন্ন প্রতারণামূলক কর্মকান্ড শুরু করে আসছিল। এই তার প্রতারণার একটি অংশ বলে স্বীকার করেছে পুলিশের কাছে, এই চক্রের সাথে আরও অনেকেই জড়িত আছে বলে সূত্র জানায়। এই প্রতিবেদন ধারাবাহিক ভাবে প্রকাশ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media






© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD