বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৮:১৪ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
পানছড়িতে মানুষের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে ও সম্প্রীতি রক্ষায় কাজ করে যাচ্ছেন জোন অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল রুবায়েত আলম পিএসসি কাঁচা চা পাতার মুল্য ১৮ টাকা কেজি দরে নির্ধারণ করা হয়েছে পুঠিয়ায় বিদেশী পিস্তলসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী আটক জয়পুুরহাটে বেকার নারীদের পোশাক তৈরি বিষয়ক সপ্তাহব্যাপী প্রশিক্ষণের উদ্বোধন প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় সুজানগরে নবম শ্রেণীর ছাত্রীকে পিটিয়ে জখম আমিনপুর থানা আওয়ামীলীগের সম্মেলন সফল করতে মতবিনিময় প্রধানমন্ত্রী দেশের মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন,বিএনপির মহাসচিব সব জান্তা শমসের – রাসিক মেয়র লিটন। জাহাঙ্গীর আলম সাংস্কৃতিক পরিষদ ও পাঠাগারের উদ্যোগে শেখ হাসিনার দীর্ঘ আয়ু কামনায় দোয়া প্রতিপক্ষের অত্যাচার ও নির্যাতনের বাড়ি ছাড়া হয়ে এক অসহায় পরিবাবের সংবাদ সম্মেলন তেঁতুলিয়ায় প্রথমবারের মতো চাষ হয়েছে সম্ভাবনাময় ‘ব্ল্যাক রাইস’
রাজারহাটে ক্ষুরা রোগে খামারী হতাশ ভ্যাকসিনের প্রকট সংকট

রাজারহাটে ক্ষুরা রোগে খামারী হতাশ ভ্যাকসিনের প্রকট সংকট

এনামুল সরকার রাজারহাট (কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধিঃ- কুড়িগ্রামের রাজারহাটে গত ১ সপ্তাহে প্রায় ৩শতাধিক গরু-ছাগল ক্ষুরা রোগে আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে এ রোগে আক্রান্ত হয়ে ২২টি গরু ও ৮টি ছাগল মারা গেছে। এ রোগের প্রতিষেধক হিসেবে ভ্যাকসিনের প্রকট সংকট দেখা দেয়ায় খামারীসহ গবাদী পশু পালনকারীরা আতংকিত হয়ে পড়েছেন। সরেজমিনে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোর সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার উমর মজিদ ইউনিয়নের পান্থাপাড়া এলাকায় রুবেল আলমের ১টি বাছুর, নজরুল ইসলামের ২টি বাছুর, মগদুল ইসলামের ১টি গাভী, আবু তালেবের ১ টি বাছুর, বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের সুখদেব এলাকার হারুনের ১টি বাছুর, চাকির পশার ইউনিয়নের পূর্বপাঠক পাড়া গ্রামের গরুর খামারী মংলা মন্ডলের ১টি গাভীসহ ৩টি গরু ক্ষুরা রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের সুখদেব গ্রামের আশরাফুল ইসলামের ২টি, আতাউর রহমানের ২টি, আমিনুল ইসলামের ২টি, সুজাউদৌল্লার ৫টি, হারুন অর রশিদের ১৫টি, চাকিরপশার ইউনিয়নের কুমর গঞ্জ এলাকায় ১২টি বাড়ীতে আমবাড়ী এলাকায় ১০টি বাড়ীতে, চাকিরপশার পাঠক এলাকায় ১০টি বাড়ীতে, চকনাককাটি এলাকায় ১০টি বাড়ীতে, ঘড়িযালডাঙ্গা ইউনিয়নের ২০টি বাড়ীতে, ঋমর মজিদ ইউনিয়নের ২২টি বাড়ীতে, নাজিমখান ইউনিয়নে ২০টি বাড়ীতে, ছিনাই ইউনিয়নের ৩০টি বাড়ীতে, রাজহারহাট ইউনিয়নের ১২টি বাড়ীতে , বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের ২৫টি বাড়ীতে প্রায় ৩শতাধিক গরু-ছাগল আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে এ রোগের প্রাদূর্ভাব দেখা দিয়েছে। এ রোগটির সংক্ষিপ্ত নাম এফএমডি ( ফুড এন্ড মাউথ ডিজিস)। এটি একটি ভাইরাস জনিত রোগ। এ রোগ হলে দেহের তাপমাত্রা বেড়ে যায়, জিহবা, দাতের মাড়ি, মুখ গহর, পায়ের খুরার মধ্য ভাগে ঘা বা ক্ষতের সৃষ্টি হয়। ক্ষত সৃষ্টি হলে মুখ থেকে লালা ঝড়ে, সাদা ফেনা বেড় হয়। গরুর বাছুর এ রোগে আক্রান্ত হলে বাঁচানো যায় না। আক্রান্ত অবস্থায় পশুটিকে এ রোগের ভ্যাকসিন দেয়া যায় না। যে বাড়ীতে গরু আক্রান্ত হয়। আশে-পাশের বাড়ীর সকল গবাদী পশুকে রিং করে ভ্যাকসিন দিতে হয়। এছাড়া প্রতি ৪মাস পরপর একবার করে ভ্যাকসিন দিতে হয়। হাট থেকে গরু কিনে নিয়ে আসার কারণে এ রোগ বেশী দেখা দেয়। এ রোগ হলে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। বাতাস, খাদ্য ও লালা থেকে এ রোগ ছড়ায়। আক্রান্ত গরুকে ট্রাইভ্যালেন, বাইভ্যালেন ভ্যাকসিন দিতে হয় বলে উপজেলা ভ্যাটেনারী সার্জন ডাঃ পবিত্র কুমার জানান। রাজারহাট উপজেলা প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তরে এ রোগের ভ্যাকসিন সংকট দেখা দিয়েছে। এছাড়া রাজারহাটসহ বিভিন্ন হাট-বাজারে গবাদী পশুর ওষুধের দোকানগুলোতেও এ রোগের ভ্যাকসিন পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে খামারীসহ পশুপালনকারীরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। খামার গুলোতে নিয়মিত ভাবে ভ্যাকসিন দেয়ায় এ রোগ দেখা দেয়নি বলে উপজেলা ভ্যাটেনারী সার্জন দাবী করেছেন। তিনি আরো জানান, উপজেলা প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তরে মাত্র ২জন ভ্যাটেনারী ফিল্ড এ্যাসিটেন্ট (ভিএফএ) থাকায় এবং জনবল সংকটের কারণে মাঠ পর্যায়ে তারা চিকিৎসা সেবা দিতে হিমসিম খাচ্ছে। উপজেলার মংলা মন্ডল সহ বেশ কয়েকজন গরুর খামারীর সাথে কথা হলে তারা ক্ষুরা রোগের ভ্যাকসিন সংকটের কথা জানান। সোমবার এব্যাপারে উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ জোবাইদুল কবির জানান, ক্ষুরা রোগ সংক্রামক ব্যাধি এবং ছোঁয়াচে। বাইরের থেকে গরু কিনে নিয়ে আসার এবং আবহাওয়ার কারণে এ উপজেলায় ক্ষুরা রোগ দেখা দিয়েছে। একটি গরুকে আক্রমণ করলে ১কিলোমিটারের মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। তাই রিং করে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করতে হবে। অন্যান্য এলাকার চেয়ে রাজারহাটে তুলনামূলক এটি কম।#

এনামুল সরকার//নতুনবাজার।।

Please Share This Post in Your Social Media






© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD