শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ০৪:৩৩ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
দালালরা নিয়েছে লাখ লাখ টাকা: অভিযানে গ্যাসের ৫ শতাধিক অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন! কেউ কারো বিরুদ্ধে বদনাম না করাই মঙ্গল-প্রকৃত সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান ঘন ঘন যান্ত্রিক ত্রুটিতে আতংকে থাকেন রোগীরা ঝিনাইদহ জেনারেল হাসপাতালের লিফট চালায় সিকিউরিটি গার্ড সুজানগর পৌরসভার উদ্যোগে পারিবারিক সাইলো বিতরণ সুজানগরে স্কুল ছাত্রীকে পিটিয়ে জখম করার ঘটনায় অভিযুক্ত ফাহাদ গ্রেফতার সুজানগরে স্কুল ছাত্রীকে পিটিয়ে জখম, অভিযুক্ত বখাটের গ্রেফতার দাবিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন সুজানগর পৌরসভা ঝিনাইদহ মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ১ মুন্সীগঞ্জে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১ নড়াইলের ছাত্রলীগের সাবেক দুই নেতা সিলেটে থেকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ
নওগাঁ-৩ আসন পূর্ণরুদ্ধারে ফজলে হুদার বিকল্প নেই

নওগাঁ-৩ আসন পূর্ণরুদ্ধারে ফজলে হুদার বিকল্প নেই

রওশন আরা শিলা,নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁ-৩ (বদলগাছী-মহাদেবপুর) আসনটি বিএনপি পূর্ণরুদ্ধার করতে ফজলে হুদার বিকল্প নেই। এমন মন্তব্য করেছেন বদলগাছী উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা অলি আহম্মেদ রুমী চৌধুরী। এ আসনে বিএনপির প্রাণ এখন তিনি। দীর্ঘ দশ বছর এর অধীক সময় যাবত এ আসনের নেতা- কর্মীর সুখে-দুঃখে পাশে থেকে কাজ করছেন। তিনি না এগিয়ে এলে এ আসনে হয়তো বিএনপির কোন অস্তিত্ব থাকত না। প্রত্যেকটি গ্রামে গ্রামে গিয়ে নেতা-কর্মীদের সাহস যুগিয়েছেন। সভা সমাবেশ করে একত্রিত করেছেন। অনেকে মনোনয়ন প্রার্থী হলেও তার অবদান অস্বীকার করতে পারবে না। সেজন্য দুই উপজেলার নেতা-কর্মী সহ সকল শ্রেনী পেশার মানুষের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। এ আসনে তাকে ব্যতিত অন্য কাউকে দলীয় মনোনয়ন দিলে অনেক নেতা-কর্মী দল হতে মুখ ফিরিয়ে নিবে বলেও আশংকা প্রকাশ করেন তিনি।

জানা যায়, ১৯৯১ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত মরহুম ডেপুটি স্পীকার আখতার হামিদ সিদ্দিকী নান্নু একই আসন থেকে পর পর চার বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ২০০১ সালে তিনি জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পীকার নির্বাচিত হন। তিনি এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন করলেও নেতা-কর্মীদের সঙ্গে তেমন ভাল আচরন করতেন না। সেজন্য অনেকে তার দিক হতে মুখ ফিরিয়ে নেয়। পরে বিগত নবম জাতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী মানবাধীকার কর্মী ড. আকরাম হোসেন চৌধুরী জয়লাভ করেন। নির্বাচনে পরাজয়ের পর আকতার হামিদ সিদ্দিকী নান্নু নেতা-কর্মীদের সঙ্গে তেমন যোগাযোগ রাখতেন না। আর ঠিক সেই সময়ে নেতা-কর্মীদের পাশে দাড়িয়েছে এক সময়ের ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের ছাত্রনেতা ফজলে হুদা আকন্দ বাবুল। বিগত দশম নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নেতা-কর্মীদের উপর মামলা-হামলায় ছায়ার মত পাশে থেকে সহযোগীতা করেছেন। বিভিন্ন মামলায় আটক নেতা-কর্মীদের জামিন সহ তাদের পরিবারকেও সহযোগীতা ও খোঁজ -খবর নিয়েছেন। আর এসব কারনে নেতা-কর্মীরাও তাকে পুরস্কার হিসেবে বদলগাছী উপজেলা বিএবপির সভাপতি নির্বাচিত করেছেন। একাদশ সংসদ নির্বাচনে নির্বাচনী এলাকা-৪৮, নওগাঁ-৩ ( বদলগাছী- মহাদেবপুর) উপজেলার নেতা-কর্মীরা তার নেতৃত্বে আসনটি পূনরুদ্ধার করে তাকে উপহার দিতে চায় বলেও অনেকে জানান।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির দলীয় মনোনয়ন উত্তলোন করেছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা ও বদলগাছী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফজলে হুদা আকন্দ বাবুল, নওগাঁ জেলা বিএনপির সদস্য রবিউল আলম বুলেট, নব্বইয়ের আন্দোলনের সক্রিয় ছাত্রনেতা ও ব্যবসায়ী আসক কবির চৌধুরী শত, কেন্দ্রীয় ছাত্রনেতা শফিকুল ইসলাম শফিক, সাবেক ডেপুটি স্পিকারের স্ত্রী নাসরিন আরা সিদ্দিকী ও ছেলে পারভেজ আরেফিন সিদ্দিকী জনি। তবে সকলের মধ্যে ত্যাগী নেতা হল ফজলে হুদা বাবুল বলে জানান দুই উপজেলার নেতা-কর্মী।

বদলগাছী উপজেলার ভগবাগপুর গ্রামের বিএনপি কর্মী সোহেল রানা বলেন, একটি মামলায় আমরা এক সঙ্গে ৭৩ জন আটক হয়। সেসময় তিনি নিজে সকলের জামিনের ব্যবস্থা করেন এবং পরিবারকে খরচ পর্যন্ত দিয়েছে। আমার জীবনে আমি এমন নেতা দেখিনি। এ আসনটি ফিরিয়ে পাওয়ার জন্য তার কোন বিকল্প নেই।

মহাদেবপুর উপজেলার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা সাত্তার আলী মাষ্টার বলেন, পেশাগত কারনে ঢাকায় থাকলেও তিনি মোবাইল ফোন, ফেসবুক ও ইমোতে সব সময় দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেন। দীর্ঘ দিন থেকে এ দুই উপজেলার রাজনীতির মাঠে সক্রিয় আছেন তিনি। এলাকায় অবস্থানরত অনেক মনোনয়ন প্রার্থী নেতা-কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ না রাখলেও ফজলে হুদা নিয়মিত খোঁজ খবর রাখতেন। দু:সময়ে এ দুই উপজেলায় বিএনপিকে টিকিয়ে রেখেছেন। বেশির ভাগ সময় দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে ব্যস্ত ও বিভিন্ন এলাকায় ছুটে বেড়িয়েছেন। এলাকাবাসীর কাছে তিনি একটি প্রিয় মুখ।

মনোনয়ন প্রত্যাশী ফজলে হুদা বাবুল বলেন, মনোনয়নের বিষয়ে আমি শতভাগ আশাবাদী। ম্যাডাম জেলে আছেন। আমাদের এ নির্বাচন হচ্ছে তাকে মুক্ত করার লড়াই। গণতন্ত্রকে মুক্ত করার লড়াই। মানুষের বাক স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠা করার লড়াই। তবে দলের হাইকমান্ড ও ম্যাডাম যে সিদ্ধান্ত দিবে এবং দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন যে সিদ্ধান্ত নিবে সেটার বাহিরে কখনও যাবনা। দু:সময়ে নেতাকর্মীদের পাশে দাঁড়িয়েছি এবং সাধ্যমতো চেষ্টা করেছি। তা আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।####

রওশন আরা পারভীন শিলা/
নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি ।।।

Please Share This Post in Your Social Media






© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD