রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:৪৫ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
পুনরায় নৌকা মার্কা পেয়ে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন সৈয়দ আহমেদ মাষ্টার কেশবপুরে চমক দেখিয়ে ১১টি ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী ঘোষনা নড়াইলে পুলিশ সুপার ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত ও পুরস্কার বিতরণ করেন।এসপি প্রবীর কুমার রায় আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে ভোঁপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা ১১ মাসে ঝিনাইদহ বিআরটিএ ও ট্রাফিক পুলিশের জরিমানা আদায় আড়াই কোটি টাকা নাচোলে কাগজ সত্যায়িত করতে ৩ কর্মদিবস! নড়াইলে কবিয়াল বিজয়সরকারের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন তানোরে সুজনের শীতবস্ত্র বিতরণ বানারীপাড়ায় আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস পালন বানারীপাড়ায় চুরি করতে গিয়ে জনতার হাতে আটক
চৌগাছায় কপোতাক্ষ নদের উপর সেতুর সংযোগ সড়কে ভাঙন- দুর্ঘটনার আশংকা”

চৌগাছায় কপোতাক্ষ নদের উপর সেতুর সংযোগ সড়কে ভাঙন- দুর্ঘটনার আশংকা”

আজিজুল ইসলাম,যশোর জেলা প্রতিনিধিঃ যশোরের চৌগাছার জনগুরুত্বপূর্ণ একটি সেতুর পাশের রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়ায় সেতুটি ব্যবহারে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

সেতুটি নির্মাণের পরপরই তার পার্শ্বরাস্তায় দেখা দেয় ভাঙন। সেই ভাঙন এখন মারাত্মক আকার ধারণ করেছে।

গত কয়েক দিনের বর্ষায় সেতুর মুল অংশের কাছাকাছির একটি অংশ ভেঙ্গে মিশে গেছে কপোতাক্ষ নদে। তারপরও পথচারীসহ সব ধরনের যানবাহন চলাচল করছে এই সেতুর উপর দিয়ে। দ্রুত সময়ের মধ্যে সেতুর পার্শ্বরাস্তা মেরামত করা না হলে সেখানে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা করছেন এলাকাবাসী।
সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র থেকে জানা গেছে, ে নারায়নপুর ও হাকিমপুর ইউনিয়নসহ এলাকার হাজার হাজার মানুষের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম নারায়নপুরে কপোতাক্ষ নদের উপর সেতু। দেশ বিভাগের পরও এই স্থানটি দিয়ে মানুষ খেয়া পারাপার হতো। অসহনীয় দুর্ভোগ সহ্য করে মানুষ প্রতিদিন তার গন্তব্যে পৌঁছাতো। স্বাধীনতার পর যতবার নির্বাচন হয়েছে প্রতিটি নির্বাচনে এ জনপদের মানুষের প্রাণের দাবি ছিল আমরা কিছুই চাইনা, শুধু চাই কপোতাক্ষ নদের উপর একটি সেতু। মানুষের কষ্টের দিক বিবেচনা করে বিগত চারদলীয় জোট সরকার খেয়াপারাপারের স্থানে সেতু নির্মাণের কাজ শুরু করে। ওই সরকারের মেয়াদে কাজ শেষ না হওয়ায় পরবর্তী সরকারের আমলেও কাজ বছরের পর বছর বন্ধ থাকে।

একপর্যায় বর্তমান সরকারের প্রথম দিকে সেতুটি পুনরায় নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়। দীর্ঘ দিন সেতুর কাজ শেষ করে নির্মাণ করা হয় পার্শ্বরাস্তা। পার্শ্ব রাস্তার কাজ শেষে সেতুটির উপর দিয়ে চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হয়। কিন্তু বছর যেতে না যেতেই সেতুর পূর্ব পাশের পাশ্বরাস্তায় দেখা দেয় ভাঙন। প্রথম দিকে এই ভাঙ্গন অল্প হলেও বর্তমানে তা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। বিশেষ করে সেতু থেকে শুরু পাশ্ব রাস্তার দুই পাশ দিয়ে যে খুঁটি নির্মাণ করা হয়েছে ভাঙনের কারনে সেটিও সড়কের পাশে পুকুর ও ডোবায় যেয়ে মিশে গেছে। মুল সেতুর দুই পাশে প্রায় এক কিলোমিটার সড়কের দুই পাশই বর্তমানে ভাঙনের কবলে পড়েছে। সড়কের ইট খোয়া পিচ বালু সব কিছুই এখন সড়কের পাশে পুকুরের পানিতে যেয়ে পড়েছে। গত কয়েক দিনের বর্ষনে সেতুর পূর্ব পাশে মুল সেতু সংলগ্নের সড়কে দেখা দিয়েছে ভাঙন। বিশাল একটি অংশ ইতোমধ্যে ভেঙ্গে কপোতাক্ষের গর্ভে চলে গেছে। এই অবস্থার কোন উন্নতি না হলে সেতুতে উঠার সড়ক পুরোটাই ভেঙ্গে মিশে যাবে কপোতাক্ষে। বর্তমান ভাঙন স্থান দিয়ে অত্যান্ত শতর্কতার সাথে যানবাহনসহ পথচারীরা পারাপার হচ্ছেন।

নারায়নপুর গ্রামের আবু সাঈদ ও রাজু জানান, কপোতাক্ষ নদ গ্রামটির পাশ দিয়ে প্রবাহমান। যুগযুগ ধরে সেতু সংলগ্ন স্থান দিয়ে খেয়া পারাপার হতেন। মানুষের কষ্টের দিক বিবেচনা করে নদের উপর নির্মাণ করা হয় সেতু, যা স্থানীয়দের বহুদিনের কাংখিত ফসল। সেতুটি নির্মাণের পর এ অঞ্চলের মানুষের কষ্ট বহুলাংশে কমে যায়। বিশেষ করে কৃষক তার উৎপাদিত ফসল যথা সময়ে বাজারে নিয়ে ন্যায্য দামে বিক্রি করে লাভবান হতে থাকে। অসুস্থ মানুষ দ্রুত সময়ের মধ্যে উপজেলা সদরে নিয়ে কাংখিত চিকিৎসা সেবা গ্রহন করতে পারছেন। সেতুটি নির্মাণের পর বলাচলে এ অঞ্চলের চিত্র অনেকটাই পাল্টে গিয়েছিল। তিনি বলেন, সেতু চলাচলের জন্য খুলে দেয়ার পর প্রতিদিন বিকালে স্থানীয়রাসহ দুর দুরান্ত থেকে মানুষ এখানে ঘুরতে আসে। বলাচলে এ যেন এক মিনি পর্যটন কেন্দ্র। কিন্তু হঠাৎ করে সেতুর দুই পাশের সড়ক ভেঙ্গে পাশে পুকুরে যেয়ে পড়েছে। সড়ক সংকুচিত হয়ে আসছে। এমনিতেই মুল সড়ক থেকে সেতু অনেক অনেক গুন উঁচু। এমন পরিস্থিতিতে সড়ক ভাল না হলে এখানে দূর্ঘটনার আশংকা আছে। গত বর্ষায় সেতুর কাছাকাছি সড়কেও ভাঙন দেখা দিয়েছে। দুই পাশের সড়কই এখন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

স্থানীয় একাধিক ব্যক্তির সাথে কথা বলে জানা গেছে, নারায়নপুরে কপোতাক্ষ নদের উপর নির্মিত সেতুটি মুল সড়ক থেকে অনেক উঁচু। মুল সেতুতে উঠা নামা বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। তারপর পার্শ্বরাস্তা যে ভাবে ভাঙতে শুরু করেছে, তাতে ঝুঁকি আরও বেড়ে গেছে। খোজ নিয়ে জানা গেছে, সেতুর দুই পাশের পাশ্বরাস্তা সেতুর সাথে মিল করে নির্মাণ করতে যেয়ে সড়কও উচু করতে হয়েছে। সড়কগুলো যেভাবে উচু করা হয়েছে তার পাশের মাটিকে শক্ত করে ধরে রাখার জন্য তেমন কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। সেতুর পূর্ব পাশের সড়কের দুই ধারে রয়েছে পুকুর। অল্প বৃষ্টিতেই সড়কের মাটি ভেঙে পুকুরে চলে যাচ্ছে। অনুরুপ ভাবে সেতুর পশ্চিম পাশের সড়কও ভেঙ্গে চলে যাচ্ছে নিচু এলাকায়। এই ভাঙন রোধে দরকার দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা।

স্থানীয়দের স্বপ্নের কাংখিত সেতুটি এক সময় ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পড়বে। এলাকাবাসি সেতুটি রক্ষায় পার্শ্বরাস্তা দ্রুত মেরামতের জন্য সংশ্লিষ্ঠদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Please Share This Post in Your Social Media



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD