বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৪২ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
পাইকগাছায় এমপি’র সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর অর্থ চেক পেলেন ২৯ অসহায় নারী-পুরুষ নড়াইলে স্বাধীনতার সুবর্ন জয়ন্তী উপলক্ষে সু বিশাল র‌্যালী নওগাঁর আত্রাইয়ে অভ্যন্তরীণ আমন ধান ও চাল সংগ্রহ এর শুভ উদ্বোধন মহেশপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা নিহত পুলিশ স্বামীর পরকীয়ায় সংসার খরচবন্ধ অসহায় স্ত্রী সন্তানের মানবেতর জীবন কুড়িগ্রামে আনসার ও ভিডিপি কর্তৃক জাতীয় পতাকা প্রদক্ষিণ র‌্যালী উদযাপন নড়াইলে পরাজিত মেম্বার প্রার্থীকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে আহত আজ ঐতিহাসিক শান্তি চুক্তি দিবস ভোক্তা অধিকার আইন বিষয়ে সরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের পাশাপাশি জনগণকেও সচেতন হতে হবে- ইউএনও মিজাবে রহমত। ভালুকার মেদুয়ারী ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হতে চান যুবলীগ নেতা অধ্যাপক রবিন।।
জরুরি ভিত্তিতে বাঁধ নির্মানের দাবি; দক্ষিনঞ্চলের পাঁচ উপজেলার মানুষ ওয়াপদার বেড়ী বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত হওয়ার আতংকে রয়েছে

জরুরি ভিত্তিতে বাঁধ নির্মানের দাবি; দক্ষিনঞ্চলের পাঁচ উপজেলার মানুষ ওয়াপদার বেড়ী বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত হওয়ার আতংকে রয়েছে

ইমদাদুল হক মিলন,খুলনা
খুলনার দক্ষিনঞ্চলের পাঁচ উপজেলার কয়েক লক্ষ মানুষ ওয়াপদার বেড়ী বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত হওয়ার আতংকে রয়েছে। ইতিমধ্যে ৩ উপজেলার কয়কটি ইউনিয়নের ওয়াপদার বেড়ী বাঁধ ভেঙ্গে বিসতৃন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এবং বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত হওয়ার আশংখায় রয়েছে ৫ উপজেলার লক্ষ লক্ষ মানুষ।পাউবোর গাফিলতি ও তদারকির অভাবে ঝুকিপূর্ন ওয়াপদার বেড়ী বাঁধ সংষ্কার না করার কারনে বিভিন্ন স্থানে বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত হচ্ছে বলে পানি উন্নয়নবোর্ডকে দায়ী করছে সচেতন এলাকাবাসী।এদিকে ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে নিজস্ব অর্থায়নে বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু করেছেন স্ব স্ব স্থানীয় সংসদসদস্য ও শংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানগন।
সুত্রমতে খুলনার দক্ষিনঞ্চলের উপজেলা গুলি দ্বীপবেষ্টনী হওয়ায় তার চারিদিকে রয়েছে নদী।আর নদীতে জোয়ারের পানিবৃদ্ধি ও তীব্র স্রোতের কারনে বিভিন্ন স্থানে ওয়াপদার বেড়ী বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত হচ্ছে।আর বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত হওয়ার আশংখায় রয়েছে জেলার পাইকগাছা,কয়রা,ডুমুরিয়া,দাকোপ ও বটিয়াঘাটা উপজেলার কয়েক লক্ষ মানুষ।
ইতোমধ্যে গত ১২আগষ্ট রবিবার ডুমুরিয়া উপজেলার ভান্ডারপাড়া ইউনিয়নের পানি উন্নয়ন বোর্ডের ২৯নং পোল্ডারে
তেলিখালী এলাকার ৩নং পুরাতন স্লুইস গেইট সংলগ্ন ওয়াপদার বেড়ী বাঁধ বুড়িভদ্রা নদীতে অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধি ও প্রবল স্রোতের কারনে ভরা জোয়ারের সময় স্লুইস গেট সংলগ্ন ভেড়ী বাঁধে বড় আকারের ছিদ্র হয়ে পানি ভিতরে প্রবেশ করতে থাকে। এতে উপজেলার ভান্ডারপাড়া, শরাফপুর ও সাহস ইউনিয়নের কয়েক হাজার মানুুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান খান আলী মুনছুর ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হিমাংশু বিশ্বাস ঘটনাস্থলে যেয়ে এলাকাবসীদের সহযোগিতায় সেচ্ছাশ্রমে ও দৈনিক মুজুরীতে শ্রমিক দিয়ে বাঁধ সংষ্কার কাজ সম্পন্ন করেন। এদিকে ভাঙ্গন আতংকে রয়েছে ডুমুরিয়া উপজেলার শরাফপুর ইউনিয়নের ২৯ নং পোল্ডারের আখড়া,শনি আখড়া,ভুল বাড়িয়া,রতনখালী, চাঁদগড়, বকুলতলা, বারআড়িয়া, কোদলা ও শম্ভুনগর সহ প্রায় ২০ গ্রামের মানুষ । যে কোন সময় বাঁধ ভেঙ্গ বিস্তৃির্ণ এলাকা প্লাবিত হতে পারে। জেলার পাইকগাছা উপজেলায় গত ১৩ও১৪ আগষ্ট সোম ও মঙ্গলববার দুই দফা বাঁধ ভেঙ্গে জোয়ারের উপচে পড়া পানিতে দেলুটি ইউনিয়নের ৩টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। জলমগ্ন হয়ে পড়ে কয়েক’শ পরিবার। পানিতে তলিয়ে গিয়ে শত শত বিঘা জমির ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ভেসে গেছে অসংখ্য চিংড়ি ঘেরের মাছ। দেলুটি ইউপি চেয়ারম্যান রিপন কুমার মন্ডল জানান, সোমবার দুপুরে বাঁধ ভেঙ্গে চকরিবকরি বদ্ধ নদীর জোয়ারের উপচে পড়া পানি ভিতরে প্রবেশ কওে ইউনিয়নের গেওয়াবুনিয়া, চকরিবকরি ও পারমধুখালী সহ ৩টি গ্রামের বিস্তির্ণ এলাকা প্লাবিত হয়। এলাকাবাসী তাৎক্ষণিকভাবে বাঁধটি মেরামত করলেও সকালে পুনরায় ভেঙ্গে যায়। ফলে দু’দফা ভাঙ্গনের কারণে জোয়ারের পানিতে এলাকার বিস্তির্ণ এলাকা পুনরায় তলিয়ে যায়। এতে ফসল ও চিংড়ি ঘেরের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হওয়া সহ কয়েক’শ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়ে। এলাকাবাসীর সহযোগিতায় ক্ষতিগ্রস্থ বাঁধ মেরামত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে সরকারিভাবে সহায়তা করা হলে বাঁধটি মেরামত করতে সহজ হবে বলে স্থানীয় এ জনপ্রতিনিধি জানিয়েছেন। অপরদিকে গড়ইখালী ইউনিয়নে কুমখালী গ্রামের পাউবো’র ১০/১২ নং পোল্ডারের ওয়াপদার ভেড়িবাঁধ শিবসা নদীর প্রবল স্রোতে গত১৫ আগষ্ট বুধবার গভীর রাতে অর্ধেক ভেঙ্গে যায়। যার ফলে ঐ রাতেই স্থানীয় লোকজন বাঁধ রক্ষার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে। বৃহস্পতিবার পাইকগাছা-কয়রার সংসদসদস্য আলহাজ্ব এ্যাডঃ শেখ মোঃ নুরুল হক ও
স্থানীয় গড়ইখালী ইউপি চেয়ারম্যান রুহুল আমিন বিশ্বাস

ভাঙ্গন কবলিত স্থানে যেয়ে দেখেন ভাঙ্গন মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। বেড়িবাঁধ সম্পুর্ন ভেঙ্গে গেলে কয়রা উপজেলার আমাদী ও মহেশ্বরীপুর ও পাইকগাছা উপজেলার গড়ইখালী, লস্কর, চাঁদখালী ইউনিয়নের শতাধিক গ্রামে ২ লক্ষাধিক মানুষ কোটি কোটি টাকার ক্ষতির সম্মুখীন হবে। তাই এম পি নিজ অর্থায়নে ১০ হাজার টাকা ও চেয়ারম্যান রুহুল আমিন বিশ্বাস ২০ হাজার টাকা দিয়ে নিজে বসে এলাকার বাঁধ রক্ষার কাজ করছেন। এমপি নূরুল হক পানি উন্নয়ন বোর্ডের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে মোবাইলে জরুরী ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানিয়ে বলেন, ৫টি ইউনিয়নের শতাধিক গ্রামের ২ লক্ষাধিক মানুষের জীবন বাঁচানোর জন্য জরুরি ভিত্তিতে বাঁধ সংষ্কারেরর দাবী জানান।অপর দিকে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে ইঞ্জিনিয়ার প্রেম কুমার মন্ডল কয়রা উপজেলার উত্তর বেদকাশীর কাঁটকাটা নদী ভাঙ্গন কবলীত ওয়াপ্দার ভেড়ি বাঁধ মেরামতের দাবীতে এলাকার দলীয় নেতা-কর্মী ও সাধারণ জনগনদের সাথে নিয়ে মানববন্ধ করেন।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এলাকাবাসী জানান বাঁধ ভেঙ্গে গেলেও এখোন পর্যন্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডের কোন কর্মকর্তার দেখা মেলেনি। তাদের গাফলতি ও বাঁধ সংষ্কারের অভাবে এ ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন বলে এলাকাবাসী দাবি করেন। অপরদিকে উপজেলার ২৩ নং পোল্ডারের জীরবুনিয়া ও১৬নং পোল্ডারের পাটকেলপোতা এলাকায় বেড়ি বাঁধ ব্যাপক আকারে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে মুল বেড়ি বাঁধ নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।বিকল্প বাঁধ দিয়ে পানি আটকানো হয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে বাঁধ সংষ্কার না করলে আবারোও বাঁধ ভেঙ্গে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হতে পারে বলে মনে করেন সচেতন এলাকাবাসী।

Please Share This Post in Your Social Media



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD