মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:৫০ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
তিতাস গ্যাসের অবৈধ সংযোগ দিয়ে জমজমাট বাণিজ্য-প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা সুজানগরে খালেদা জিয়া সহ কেন্দ্রীয় অন্যান্য নেতাদের রোগ মুক্তি কামনা করে দোয়া পাইকগাছায় পরিকল্পিত উপায় বাগদা চিংড়ি ও ধান চাষের লক্ষে মত বিনিময় সভা। পাইকগাছায় নিরাপদ সড়ক চাই সংগঠনের পক্ষ থেকে পঙ্গু আঃ খালেককে সিঙ্গার সেলাই মেশিন বিতরণ পাইকগাছার কপিলমুনিতে দু’টি গ্রুপের পৃথক ভাবে রায় সাহেবের ৮৮তম তিরোধান দিবস পালিত সুজানগরে উপহারের ঘর পরিদর্শন করলেন পুলিশ সুপার সুজানগরে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুলিশ সুপারের শীতবস্ত্র বিতরণ তানোরে রাজশাহী জেলা সমিতির শীতবস্ত্র বিতরণ সেলাই দক্ষতা প্রশিক্ষণ ও সেলাই মেশিন বিতরণ কার্যক্রম সভাপতি মানিক এবং সম্পাদক শাহজাহান বানারীপাড়ায় নতুনমুখের সম্মেলন অনুষ্ঠিত
ডুমুরিয়ার ভদ্রা ও সালতা নদী খনন প্রায় শেষ পর্যায়

ডুমুরিয়ার ভদ্রা ও সালতা নদী খনন প্রায় শেষ পর্যায়

মারিয়া আফরিন পায়েল,ডুমুরিয়া,খুলনা॥
খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া এক সময়ের খরস্রোতা ভদ্রা ও সালতা নদীপলি জমে নাব্যতা হারিয়ে মরা খালে পরিনত হয়ে ছিল।এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে পূন্য খননে যৌবন ফিরে পেতে চলেছে নদীটি। এক সময় উপজেলার বিস-ৃন্ন এলাকার পানি নিষ্কাশনের এক মাত্র মাধ্যম ছিল এই নদী।এলাকার নিম্ন আয়ের মানুষেরা নদী থেকে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করতো।কিন’ কালের বিবর্তনে নাব্যতা হারিয়ে মরা খালে পরিনত হয় নদীটি।
মাত্র কয়েক বছর আগেও ভদ্রা-শালতা নদী ঘিরে হাজার হাজার মানুষের জীবন-জীবিকা চলতো। জোয়ার-ভাটা, মাছ শিকারসহ নৌকা চলাচল করতো এই নদীতে। অর্থনৈতিক উন্নয়নেও ছিল নদী দু’টির গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। কিন’ কালের বিবর্তমানে ও নানা প্রতিকূলতার মুখে ভদ্রা ও শালতা নদীতে প্রায় ৩০ কিলোমিটার পলিপড়ে নাব্যতা হারিয়ে ভরাট হয়ে মরা খালে পরিনত হয়।
নদী খননের ফলে কয়েক দিনের ভারি বর্ষনে নদীতে পানি জমেছে, আর নদীতে পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির দেশীয় মাছ। এলাকাবাসী বৃষ্টির মধ্যে মাছ ধরতে নেমে পড়ছে নদীতে।অনেকেই মাছ বাজারে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছে।
চিঙ্গরা গ্রামের আবু তাহের বলেন,নদী ভরাট হয়ে যাওয়ার কারনে বর্ষা মৌসুমে বিসতৃর্ন এলাকা প্লাবিত হতো।আবার দেশীয় মাছের স্বাধভুলেই গিয়েছিলাম।
কিন’ নদীটি খননে একদিকে পানি নিষ্কাশনের ব্যাবস-া হয়েছে, অন্য দিকে আমরা মাছ ধরে জিবীকা নির্বাহ করতে পারছি।পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, ডুমুরিয়া উপজেলার মাঝ দিয়ে বয়ে চলা ভদ্রা ও সালতা নদীটি পলি পড়ে ভরাট হয়ে যায়। নদী দু’টি খননের জন্য স’ানীয় এলাকাবাসীরা বিভিন্ন সময় দাবি করে আসছিলেন নদীটি খননের জন্য। এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে স’ানীয় সংসদ সদস্য কয়েক বার বিষয়টি সংসদে বক্তব্যও তুলে ধরেন। কথা বলেন পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষের সাথে। ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরে নদী দু’টি খননের জন্য প্রকল্প জমা দেওয়া হয়। প্রকল্পটির সম্ভাব্যতা যাচাই-বাছাই করে সরকার ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে একনেকের বৈঠকে এই প্রকল্প বাস-বায়নের জন্য ৭৬ কোটি ২৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়। ২০১৬- ২০১৭ অর্থবছরে খনন কাজ শুরু হয়। শেষ করার কথা রয়েছে ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে। ইতোমধ্যে খনন কাজ প্রায় শেষ পর্যায়।

Please Share This Post in Your Social Media



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD