বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৫৩ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
সারাদেশে ভয়ংকর মাদক অবাধে বিক্রি ও সেবন করায় নষ্ট হচ্ছে যুবসমাজ চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনালী ব্যাংক লি. গোমস্তাপুর শাখায় শীতবস্ত্র বিতরণ নওগাঁ’র পত্নীতলা উপজেলা সদদরে স্থাপিত মেডিক্যাল এ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল“ম্যাটস” এ চলতি বছর শিক্ষাক্রম চালু হচ্ছে নড়াইলে ছেলে ও বউমার অত্যাচারে গোয়াল ঘরে থাকা ৯২ বছর বয়সী শাহাজাদী নিজগৃহে শাজাহানপুরে শত্রুতার আগুনে পুড়লো কৃষকের খড়ের পালা ধামইরহাটে ইউপি নির্বাচনে ভোট কারচুপির তদন্ত শুরু নড়াইলে ডাক্তারের ভুল অপারেশনে ববিতার মৃত্যুর অভিযোগ। মা হারা হলো চার সন্তান নড়াইলে খেজুর গাছ ও রস ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে মহালছড়িতে প্রতিবন্ধী পরিবারের পাশে অর্থ সহায়তায় সেনাবাহিনী মোংলায় সাড়ে ৪ শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
রাজশাহীর রাজনীতিতে ইতিহাসের পূণরাবৃত্তি না নতুন ইতিহাস

রাজশাহীর রাজনীতিতে ইতিহাসের পূণরাবৃত্তি না নতুন ইতিহাস

আলিফ হোসেন, তানোর : আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০১৯ হবে ধরে নিয়ে গ্রাউন্ড ওয়ার্ক শুরু করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। ইতমধ্যে শুরু হয়েছে প্রতিটি সংসদীয় আসনের মাঠ জরিপ, নেয়া হচ্ছে তৃণমূলের মতামত, দেখা হচ্ছে ভোটারদের মানসিকতা ও সেই সঙ্গে তৈরী হচ্ছে সংসদ সদস্য এমপিদের আমলনামা। জানিয়ে দেয়া হয়েছে মূখ দেখে নয় তৃণমূলের মতামতের ভিত্ত্বিতে প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া হবে সেক্ষেত্রে যে কেউ ছিটকে পড়তে পারে। এদিকে রাজনৈতিক অঙ্গনে এমন পরিস্থিতিতে ফের আলোচনা শুরু হয়েছে রাজশাহী-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনোনয়ন নিয়ে, এই আসনে এবার কি ইতিহাসের পূণরাবৃত্তি হবে ? না নতুন ইতিহাস সৃষ্টি হবে সেই আলোচনায় মূখর ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষ। সূত্র জানায়, ইতিপূর্বে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি (সাবেক) তাজুল ইসলাম মোহাম্মদ ফারুক থেকে মেরাজ উদ্দীন মোল্লা যারাই সভাপতি হয়েছেন নানা কারণে তারাই এমপি মনোনয়ন থেকে ছিটকে পড়েছেন। ইতিমধ্যে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাংসদ ওমর ফারুক চৌধূরীকে ঘিরেও নানা আলোচনা ও সমালোচনা শুরু হয়েছে নেতা ও কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে। এদিকে রাজনৈতিক অঙ্গনে এসব নিয়ে পরস্পরবিরোধী বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে, এমপি ফারুক চৌধূরী অনুসারিদের দাবি এখানে এমপি ফারুকের কোনো বিকল্প নাই, অন্যদিকে এমপি ফারুক বিরোধী শিবির বলে পরিচিতদের দাবি এবার আসন ধরে রাখতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী পরিবর্তনের কোনো বিকল্প নাই। আর নতুন মূখের প্রার্থীদের ক্ষেত্রে জনমত ও তৃণমূলের পচ্ছন্দের শীর্ষে রয়েছে গণমানুষের নেতা গোলাম রাব্বানি।

 

স্থানীয় সূত্র জানায়, রাজশাহী-১ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী পরিবর্তন করে এবার নবীন নেতৃত্ব বা নতুন মূখের প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া হতে পারে বলে নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক গুঞ্জন বইছে। ইতমধ্যে শুরু হয়েছে সংসদীয় আসনের মাঠ জরিপ, নেয়া হচ্ছে তৃণমূলের মতামত ও সেই সঙ্গে তৈরী হচ্ছে সংসদ সদস্য এমপির আমলনামা দেখা হচ্ছে ভোটারদের মানসিকতা। খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে বর্তমান সংসদ সদস্য এমপিদের বিষয়ে পাশাপাশি অবার সাম্ভব্য প্রার্থীদের নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র জানিয়েছে দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিষয়টি নিয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবাইদুল কাদেরের সঙ্গে কথাও বলেছেন। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী তার প্রকাশ্যে বক্তব্যে এমপিদের এলাকামূখী হয়ে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন। এরই মধ্যে সরকারি-বেসরকারিভাবে নির্বাচনী এলাকা ভিত্তিক সংসদ সদস্য ও সাম্ভব্য প্রার্থীদের কর্মকান্ডের ওপর জরিপের কাজ শুরু হয়েছে যাচাই করা হচ্ছে জনপ্রিয়তা। প্রতিটি আসনের সাংসদ ও সাম্ভব্য প্রার্থীদের জনপ্রিয়তা যাচাই করে একাধিক প্রার্থীর নাম সংগ্রহ করা হচ্ছে। বর্তমান সাংসদ এমপিদের কারা এলাকামূখী, কারা জনবিচ্ছিন্ন, কাদের আত্নীয়-স্বজন অনিয়ম-দূর্নীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত, কারা জন ও কর্মীবান্ধব এই বিষয়গুলো জরিপে উঠে এসেছে। এমপিদের আত্নীয়করণ, বিএনপি-জামায়াত ও স্বজনপ্রীতি, মাদক কানেকশান, দূর্নীতির অভিযোগসহ স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতির বিষয়টিও গুরুত্বসহকারে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সেই সঙ্গে খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে কোন কোন আসনে আগামি নির্বাচনে দলের জয় নিশ্চিত, আর কোন কোন আসনে হারের শঙ্কা রয়েছে। যেসব আসনে হারের শংকা রয়েছে সেগুলো চিহ্নিত করে সেখানে অন্য যারা প্রার্থী হতে ইচ্ছুক তাদের সম্পর্কে খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। আর এসব প্রতিবেদন মূল্যায়ন করেই আগামী নির্বাচনে প্রার্থী বাছাই করবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।
দলীয় সূত্র জানায়, প্রতিটি নির্বাচনের আগে নিজস্ব দলীয় টিম দিয়ে নির্বাচনী এলাকায় যে জরিপ পরিচালনা করা হয় তা এরই মধ্যে শুরু হয়েছে। দলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটি এ নিয়ে কাজ শুরু করেছে। নির্বাচনী এলাকা ভিত্তিক ভোটারদের অবস্থান, মানসিকতা, দলের প্রতি সমর্থনের হার ও প্রার্থীদের জনপ্রিয়তার তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। তথ্য সংগ্রহ শেষে সেগুলো বিশ্লেষণ করে দলের হাইকমান্ডের কাছে তুলে ধরা হবে। শুধু নিজ দলের প্রার্থী নয় প্রতিপক্ষ প্রার্থীদের খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে।
অপরদিকে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের একটি সূত্র জানায়, রাজশাহীর অধিকাংশ আসনে বর্তমান এমপিরা মনোনয়ন বঞ্চিত হতে পারেন। কারণ হিসেবে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা জানান, অনেক সাংসদ এমপির ঘনিষ্ঠ আত্নীয়-স্বজনরা বিভিন্ন অনিয়ম-দূর্নীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ও বিভিন্ন সংগঠনবিরোধী কর্মকান্ড, নেতাকর্মীদের সঙ্গে অসাদাচরণ, টেন্ডারবাজি, নিয়োগ বাণিজ্য ও তদ্বির বাণিজ্যসহ নানা বির্তকিত কর্মকান্ড করে তাদের রাজনৈতিক ইমেজের বারোটা বাজিয়েছে। তাদের আত্নীয়-স্বজনদের এসব কর্মকান্ডের কারণে তারা রাজনীতির মাঠে অনেকটা জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন বলে তৃণমূলের অভিযোগ। ওদিকে এসব নেতাদের বিষয়ে নির্বাচনী এলাকায় তৃণমূলের নেতা ও কমী-সমর্থকদের মধ্যে চলছে জমজমাট আলোচনা। এলাকার চায়ের দোকান ও মোড়ে মোড়ে নিজ নিজ পচ্ছন্দের নেতাদের প্রার্থীতার যৌক্তিকতা ও যোগ্যতা তুলে ধরে নেতাকর্মীরা চায়ের কাপে আলোচনা-সমালোচার ঝড় তুলেছেন। এসব বিষয়ে একাধিকবার যোগাযোগের চেস্টা করা হলেও রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল কারো কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Please Share This Post in Your Social Media



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD