মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৫:০৪ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
কুসিক নির্বাচনে প্রার্থী হলেন সিআইপি এমরান খান আজ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আশুলিয়ায় কুকুরের মাংস দিয়ে বিরায়ানী বিক্রির অভিযোগে ১ জন আটক পাইকগাছা থানার আসাদুজ্জামান ও মোঃ নাসির উদ্দিন খুলনা জেলা শ্রেষ্ট কর্মকর্তা নির্বাচিত যে কোন দুর্যোগে সিপিপি’র কর্মীরা জীবন বাজী রেখে মানুষের কল্যানে কাজ করেন- এমপি- বাবু খুলনার দক্ষিঞ্চালে মৌসুমের শুরুতেই ভাইরাসে মরে যাচ্ছে চিংড়ি মাছ; দুশ্চিন্তায় চাষিরা বিরামপুরে বোরো ধান সংগ্রহে উন্মক্ত লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন ঝিনাইদহে মেয়র প্রার্থীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলার প্রতিবাদে শান্তি মিছিল নড়াইলে ডিবি পুলিশের অভিযানে ফেনসিডিল সহ আটক ১ বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের শুভ উদ্ভোধন
বেনাপোল বন্দরে আমদানি বাড়লেও রাজস্ব আয় কমেছে

বেনাপোল বন্দরে আমদানি বাড়লেও রাজস্ব আয় কমেছে

আজিজুল ইসলাম,শার্শা প্রতিনিধিঃ দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে আমদানি বাড়লেও রাজস্ব আয় কমেছে। গত ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের প্রথম ১০ মাসের তুলনায় চলতি ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের প্রথম ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) ৩ লাখ ৭৬ মেট্রিক টন বেশি পণ্য আমদানি হয়েছে।

চলতি অর্থ বছরের ১০ মাসে আমদানি হয়েছে ১৪ লাখ ৪১ হাজার মেট্রিক টন। আর ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের ১০ মাসে আমদানি হয়েছিল ১০ লাখ ৬৫ হাজার মেট্রিক টন।

এ সময় বেনাপোলে রাজস্ব আদায় কমেছে। প্রথম ১০ মাসে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৬৮ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। সেখানে আদায় হয়েছে ৩৩৯ কোটি ৩ লাখ ২৯ হাজার টাকা। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৯ কোটি ৭৫ লাখ টাকা কম।

কাস্টমস সূত্র জানায়, চলতি অর্থ বছরের প্রথম ১০ মাসে উচ্চ শুল্কযুক্ত পণ্য আমদানি কমে শুল্কমুক্ত পণ্য ও কম শুল্কযুক্ত পণ্য বেশি আমদানি হওয়ায় আমদানির পরিমাণ বাড়লেও রাজস্ব আদায় কমে গেছে।

বেনাপোল কাস্টমসের পরিসংখ্যানে জানা যায়, চলতি বছরের জুলাই মাসে আমদানি হয়েছে এক লাখ ৪ হাজার ৪৯৩ দশমিক ৬৪ মেট্রিক টন পণ্য, আগস্টে এক লাখ ২১ হাজার ১৩৫ দশমিক ৮৯ মেট্রিক টন, সেপ্টেম্বরে এক লাখ ২৫ হাজার ৭৫০ মেট্রিক টন, অক্টোবরে ২ লাখ ৭৩ হাজার ৬০৮ দশমিক ৮৫ মেট্রিক টন, নভেম্বরে ১ লাখ ৩৭ হাজার ৩০৪ দশমিক ৮৭ মেট্রিক টন, ডিসেম্বরে এক লাখ ৩৭ হাজার ৩০৪ দশমিক ৮৪ মেট্রিক টন এবং জানুয়ারিতে এক লাখ ৬২ হাজার ১১৪ দশমিক ৬১ মেট্রিক টন। ফেব্রুয়ারিতে ১ লাখ ২৬ হাজার ১৪ মেট্রিক টন, মার্চে ১ লাখ ২৭ হাজার ২৯ দশমিক ৬১ মেট্রিক টন, এপ্রিলে এক লাখ লাখ ১১ হাজার ৮৯৯ দশমিক ৯১ মেট্রিক টন।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান স্বজন বলেন, বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি বাড়লেও রাজস্ব আয় কমে গেছে। কম শুল্কযুক্ত পণ্য আমদানি হলে রাজস্ব কমবে এটা স্বাভাবিক। কাস্টমসের মূল্য বৃদ্ধি ও বিজিবির হয়রানির কারণে উচ্চ শুল্কযুক্ত পণ্য আমদানি কমে গেছে। যে কারণে আমদানি বাড়লেও রাজস্ব কমে যাচ্ছে।

আমদানি-রফতানিকারক ইমরান হোসেন জানান, সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল বন্দরের খুব একটা উন্নয়ন নেই। কাস্টম চলতি বছর থেকে অতিরিক্ত শুল্কহার নির্ধারণ করেছে। যাতে বেশিরভাগ ব্যবসায়ী আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। আবার পণ্য এনে বন্দরে সময় পেলেও ব্যবসায়ীরা ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। বেনাপোল ব্যবসায়ীদের জন্য অনুকূল পরিবেশ না থাকায় অনেক ব্যবসায়ী অন্য বন্দরে চলে যাচ্ছেন। যে কারণে এখানে রাজস্ব আদায় কমে গেছে।

বেনাপোল কাস্টমস হাউজের কমিশনার বেলাল হোসাইন চৌধুরী বলেন, বেনাপোল বন্দর দিয়ে উচ্চ শুল্কযুক্ত পণ্য আমদানি কমে গেছে। কম শুল্কযুক্ত পণ্য যেমন খাদ্যপণ্য বেশি আসছে। এতে শুল্ক খুবই কম। চালের মাত্র ২ শতাংশ শুল্ক। আর পেঁয়াজে কোনো শুল্ক নেই। যে কারণে আমদানি বাড়লেও রাজস্ব আদায় কমেছে। তবে আগামী মাসগুলোতে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে বলে আশা করছি।

Please Share This Post in Your Social Media






© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD