বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:০৯ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
সারাদেশে ভয়ংকর মাদক অবাধে বিক্রি ও সেবন করায় নষ্ট হচ্ছে যুবসমাজ চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোনালী ব্যাংক লি. গোমস্তাপুর শাখায় শীতবস্ত্র বিতরণ নওগাঁ’র পত্নীতলা উপজেলা সদদরে স্থাপিত মেডিক্যাল এ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং স্কুল“ম্যাটস” এ চলতি বছর শিক্ষাক্রম চালু হচ্ছে নড়াইলে ছেলে ও বউমার অত্যাচারে গোয়াল ঘরে থাকা ৯২ বছর বয়সী শাহাজাদী নিজগৃহে শাজাহানপুরে শত্রুতার আগুনে পুড়লো কৃষকের খড়ের পালা ধামইরহাটে ইউপি নির্বাচনে ভোট কারচুপির তদন্ত শুরু নড়াইলে ডাক্তারের ভুল অপারেশনে ববিতার মৃত্যুর অভিযোগ। মা হারা হলো চার সন্তান নড়াইলে খেজুর গাছ ও রস ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে মহালছড়িতে প্রতিবন্ধী পরিবারের পাশে অর্থ সহায়তায় সেনাবাহিনী মোংলায় সাড়ে ৪ শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ
তোফা-তহুরা খুলেছে ব্যাংক একাউন্ট

তোফা-তহুরা খুলেছে ব্যাংক একাউন্ট

মো: আনিসুর রহমান আগুন, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ দেশব্যাপী আলোচিত কোমরে জোড়া লাগানো থেকে আলাদা করা যমজ দুই বোন তোফা-তহুরার চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন সরকারি , বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, স্বেচ্ছাসেবি সংগঠন, দানশীল ব্যাক্তির দেয়া আর্থিক সহায়তার টাকা জমা রাখার জন্য একাউন্ট খুলেছে ইসলামি ব্যাংক লিমিটেড সুন্দরগঞ্জ শাখায়। গত বৃহস্পতিবার তোফা-তহুরা তার মা ও বাবার কোলে করে ব্যাংকে আসলে জনতা উফছে পড়া ভীড় করে। ব্যাংক ব্যবস’াপক এ এইচ এম রাশেদুল ইসলাম তোফা-তহুরাসহ বাবা-মাকে তাঁর কড়্গে নিয়ে একটি সঞ্চয়ী হিসাব নং (১৫৬৭২) খুলে দেন। এরপর ওই একাউন্টে তোফা-তহুরার চিকিৎসার জন্য দেয়া ডার্চ বাংলা ব্যাংকে ১ লাখ এবং মেঘনা ব্যাংকের ৫০ হাজার টাকার চেক জমা করা হয়। তোফা-তহুরার মা শাহিদা বেগম এবং বাবা সাজু মিয়া জানান- চিকিৎসার্থে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের দেয়া চেক জমা দেয়ার জন্য ব্যাংক একাউন্ট খোলা হয়েছে।
ভাল আছে তোফা-তহুরা। বর্তমানে নানার বাড়িতে আনন্দে দিন কাটছে তাদের। সর্বশেষ ঢাকায় টানা সাড়ে চার মাস চিকিৎসা শেষে গত ২৪ ফেব্রম্নয়ারি রাতে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার রামজীবন ইউনিয়নের কাশদহ গ্রামের নানার বাড়ীতে ফিরেছে তোফা-তহুরা। কিন’ বাড়িতে বিদ্যুৎ না থাকা কারণে গরমে দুই বোন প্রতিনিয়ত অসুস’্য হয়ে পড়ছিল। সে কারণে বিশেষ নির্দেশনায় গত ৯ মার্চ তোফা-তহুরার নানার বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হয়। তোফা-তহুরার কারণে ওই এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ চালু হওয়ায় এলাকাবাসী আনন্দিত।
প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ নির্দেশনায় ২০১৭ সালের ১২ সেপ্টেম্বর তোফা-তহুরাকে দেখতে এসে গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক গৌতম চন্দ্র পাল ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম গোলাম কিবরিয়া বিদ্যুৎ বিভাগকে তোফা-তহুরার বাড়িতে দ্রম্নত বিদ্যুতের সংযোগ প্রদানের আদেশ দেন। ওই সময় ইউএনও গরমের কষ্ট থেকে রেহাই পেতে তাদের বাড়ীতে ৫০ ওয়াটের একটি সৌরবিদ্যুৎ লাগিয়ে দেয়।
বাড়ীতে ফিরলেও নিয়মিত তোফা-তহুরার খোঁজ-খবর নিচ্ছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. সাহনূর ইসলাম। তাদের দু’জনকে ভালো রাখতে সবসময় মুঠোফোনে মা শাহিদা বেগমকে পরামর্শ দিচ্ছেন তিনি।
মা শাহিদা বেগম বলেন, চিকিৎসকরা বলেছেন তোফা-তহুরার যেন কোন অযত্ন না হয়। সবসময় যেন ভালো থাকে, সেভাবে রাখতে হবে। তিনি বলেন বর্তমানে তোফা-তহুরা ভাল আছে। নিয়মিত বুকের দুধ খাচ্ছে। পাশাপাশি অন্য খাবারও খাচ্ছে। তারা একটু-একটু করে হাটার চেষ্টা করছে। ক্যাথেটার দিয়ে তহুরাকে প্রসাব করাতে হচ্ছে। এ ছাড়া আর কোন সমস্যা নাই। তোফা-তহুরার জন্মের ৬ মাস আগে থেকে শাহিদা বেগম তার বাবা শহিদুল ইসলামের বাড়িতে রয়েছে।
তোফা-তহুরার চিকিৎসক ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. সাহনূর ইসলাম জানান- তোফা-তহুরা এখন ভালো আছে। তহুরার প্রসাবের একটু ইনফেকশন রয়েছে। তাকে চিকিৎসা দেওয়া আছে। এ ছাড়া তাদের দু’জনকে ডেভেলপমেন্টাল থেরাপির জন্য সাভার সিআরপিতে (পড়্গাঘাতগ্রসত্মদের পুনর্বাসন কেন্দ্রে) পাঠানো হয়েছিল। সেখানে চিকিৎসা শেষে তাদেরকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এখন তাদের ওজন সাত কেজি করে রয়েছে। ওজন ১০ কেজি হওয়ার পরে তাদের আবারো অপারেশন করা হবে। এখন থেকে প্রতিমাসে চেকআপের জন্য তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে একবার আসতে হবে। এর আগেই যদি অসুস’্য হয়, তখন আগে আসবে।
দেশব্যাপী আলোচিত এই জমজ শিশু তোফা-তহুরার এমন অপারেশন দেশে এইবারই প্রথম। তাই যে কোন উপায়ে তাদের দু’জনকে সুস’্য রাখা চিকিৎসকদের জন্যও এক ধরনের চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়িয়েছে।
২০১৬ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর কোমরে জোড়া লাগানো অবস’ায় গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার রামজীবন ইউনিয়নের কাশদহ গ্রামে নানার বাড়িতে তোফা ও তহুরার জন্ম হয়। মিড়িয়ায় বিষয়টি আলোচিত হলে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় তাদেরকে ৭ অক্টোবর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর ১৬ অক্টোবর তাদের প্রথম অস্ত্রোপচার করা হয়। ২০১৭ সালের ১ আগষ্ট তাদেরকে আলাদা করার জন্য করা হয় দ্বিতীয় অস্ত্রোপচার। পরে সুস’ হলে সে বছরেরই ১০ সেপ্টেম্বর রাতে ঢাকা থেকে গাইবান্ধায় ফেরে তোফা-তহুরা। আবারও তহুরা অসুস্থ হলে ২০১৭ সালের ৮ অক্টোবর তহুরাকে ঢাকায় নেওয়া হলে সাড়ে চার মাস চিকিৎসা শেষে গত ২৪ ফেব্রম্নয়ারি বাড়ীতে ফেরে জমজ দু’বোন তোফা-তহুরা।

Please Share This Post in Your Social Media



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD