বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
ফুলবাড়িয়া উপজেলা পরিষদের প্রথম সভা অনুষ্ঠিত অভিযান চলমান: আশুলিয়ায় তিতাস গ্যাসের অবৈধ সংযোগ বন্ধ হচ্ছে না কেন? পাইকগাছায় খেঁজুরের রস আহরণে ব্যস্ত গাছিরা রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হোসেন দিনাজপুরে লক্ষিত জন গোষ্ঠীর মাঝে সবজির চারা বিতরণে মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম স্বাদে অতুলনীয় আত্রাইয়ের নারীদের তৈরি কুমড়ো বড়ি মহেশপুরের ভারতীয় সীমান্ত থেকে এক বাংলাদেশীর লাশ উদ্ধার। নড়াইলের জয়পুর শ্রী তারক ধামে সন্ত্রাসী হামলায় মতুয়ারা আহত বিচারের দাবী র‌্যাব-১২’র পৃথক অভিযানে সিরাজগঞ্জের সদরে ইয়াবা ও ফেন্সিডিলসহ ০৩ জন মাদক কারবারী আটক তারাগঞ্জে বাস-পিকআপ মুখোমুখি সংঘর্ষ নিহত ১
গোপালগঞ্জের বশেমুরবিপ্রবি বঙ্গবন্ধু পরিষদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী শিক্ষক ফাতেমা খাতুনের দৌড়-ঝাপ শুরু : যোগ দিয়েছেন ভিসি

গোপালগঞ্জের বশেমুরবিপ্রবি বঙ্গবন্ধু পরিষদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী শিক্ষক ফাতেমা খাতুনের দৌড়-ঝাপ শুরু : যোগ দিয়েছেন ভিসি

শিমুল বিশ্বাস..গোপালগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নবগঠিত বঙ্গবন্ধু পরিষদের আহবায়ক কমিটিকে নিয়ে ষড়যন্ত্রকারী শিক্ষকদের মধ্যে অন্যতম ইটিই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ফাতেমা খাতুনের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার দেশের বিভিন্ন অনলাইন ও কয়েকটি পত্রিকায় “গোপালগঞ্জের বশেমুরবিপ্রবি বঙ্গবন্ধু পরিষদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী শিক্ষক ফাতেমা খাতুনের অতীত ইতিহাস কি ?” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর তার দৌড়-ঝাপ শুরু হয়।
বর্তমানে ফাতেমা খাতুন নিজেকে বাচাতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। তিনি বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে তিনটার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান ভিসি প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিন পন্হী কিছু শিক্ষকদের নিয়ে ঢাকায় রওনা হয়ে যান। তাদের টার্গেট যে কোন মুলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নবগঠিত বঙ্গবন্ধু পরিষদের আহবায়ক কমিটিকে ভেঙ্গে দিয়ে ফাতেমা খাতুনের নেতৃত্বে নতুন কমিটির অনুমোদন করিয়ে আনবেন।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নবগঠিত বঙ্গবন্ধু পরিষদের আহবায়ক কমিটিকে ভাঙ্গার ষড়যন্ত্রে তাদের সাথে যোগ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান ভিসি প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিন। তিনিও বৃহস্পতিবার রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তার ব্যবহৃত গাড়ীতে আরো কয়েকজন শিক্ষক ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক ডা: এস এ মালেকের এক আতśীয়াকে নিয়ে রাতেই ঢাকা রওনা হয়ে যান।
এ ছাড়াও সংবাদ প্রকাশের পর ফাতেমা খাতুন সাংবাদিকদের নামে মামলা করার হুমকি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন আমি ছাত্রদলের নেত্রী ছিলাম ঠিকই কিন্তু কখনো কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের খালেদা জিয়া হলের ছাত্রদলের নেত্রী ছিলাম না। আমি ছিলাম ফজিলাতুননেসা মুজিব হলের ছাত্রদলের নেত্রী। কেন খালেদা জিয়া হল লেখা হয়েছে সে কারনে মামলা করবেন বলে জানা গেছে।
অপরদিকে সংবাদটি প্রকাশ হওয়ার পর ফাতেমা খাতুন তার ব্যবহৃত মোবাইল ০১৭১৩-৭৬১১৪৭ নম্বর থেকে ফোন করে এই প্রতিবেদককে ঢাকায় তার সাথে সাক্ষাত করার জন্য বার বার অনুরোধ করেন। এ সময় তিনি বলেন আমার সাথে আপনি বসুন আপনাকে আমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্নীতির অনেক তথ্য দিতে পারবো যা লিখে আপনি মজা পাবেন। যে তথ্য গোপালগঞ্জে বসে দেওয়া সম্ভব না। প্রতিবেদক সাক্ষাত করার আশ্বাস দিলে তিনি বিদায় নিয়ে ফোনটি কেটে দেন।
ফাতেমা খাতুন সাবেক ছাত্রদলের নেত্রী হওয়া সত্বেও বর্তমানে গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরির সুবাদে নিজেকে বঙ্গবন্ধুর আর্দশে গড়া সৈনিক বলে জাহির করে থাকেন। অথচ তিনি ছিলেন জামাত-বিএনপি দলের একজন নেতা যার একাধিক প্রমান কুষ্টিয়াবাসী জানেন। প্রকৃত পক্ষে ফাতেমা খাতুন ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হয় কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩য় বর্ষে পড়ালেখা চলাকালীন যখন তার স্বামী মিজানুর রহমানের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে তখন থেকেই। যেহেতু মিজানুর রহমান ছিলেন খুব প্রভাবশালী ছাত্রদল নেতা সেই সুবাদে ফাতেমা খাতুনও খুব গর্বের সঙ্গে একই রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন।
উল্লেখ্য যে, ফাতেমা খাতুন কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে প্রভাষক পদে চাকরীর জন্য আবেদন করলে তার রাজনৈতিক ব্যাকগ্রাউন্ড বিএনপি জামাতের সঙ্গে জড়িত থাকার কারণে তার নিজের ডিপার্টমেন্টেই চাকরী হয়নি। অবশেষে ফাতেমা খাতুন হামদার্দ ইউনিভার্সিটিতে কয়েক বছর চাকরী করার পর শেষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান ভিসি (যার নামে ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রফেসর থাকাকালীন জিয়া পরিষদের সঙ্গে রাজনীতি করার অভিযোগ আছে) প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন তাকে কোনো প্রকার রাজনৈতিক ব্যাকগ্রাউন্ড তোয়াক্কা না করে বিএনপি-জামাত পন্হী হওয়ার কারনে ফাতেমা খাতুনকে নিয়োগ প্রদান করেন।
ফাতেমা খাতুনের বিরুদ্ধে দেশের বিভিনś অনলাইন ও কয়েকটি পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর এক এক করে থলের বিড়াল বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে। অনেকে ফোন করে আবার অনেকে সরাসরি এসে শিক্ষক ফাতেমা খাতুনের বিরুদ্ধে নানা অজানা তথ্য সাংবাদিকদের কাছে হস্তান্তর করছেন। যা পরবর্তীতে ধারাবাহিক ভাবে প্রকাশ করা হবে।
গোপালগঞ্জে অবস্থিত জাতির পিতার নামে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়টিতে বিএনপি-জামায়াতের শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে কলংকিত করা হয়েছে বলে মত প্রকাশ করেছেন অভিজ্ঞ মহলসহ সাধারন মানুষ।বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএনপি-জামায়াতের শিক্ষকদের অপসার ও তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে এবং মানসম্মত শিক্ষার সুষ্ঠ পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষা মন্ত্রীর আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সাধারন ছাত্র-ছাত্রীসহ অভিজ্ঞ মহল।

Please Share This Post in Your Social Media



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD