রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৯:২৮ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
গণমাধ্যম কর্মী ও শিক্ষকসহ মধ্যবিত্তদের মানবেতর জীবনযাপন-হচ্ছে মানবাধিকার লঙ্ঘন পাইকগাছায় বিশ্ব খাদ্য দিবস ও জাতীয় ইঁদুর নিধন অভিযান উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত শৈলকুপায় আ’লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে অর্ধশত আহত বাড়িঘার ভাংচুর মন্দিরে হামলা-ভাংচুরের প্রতিবাদে ঝিনাইদহে মানববন্ধন ঝিনাইদহে ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচা খুন তানোরের কাঁমারগা ইউপিতে এগিয়ে মসলেম সার্ক কালচারাল ফোরামের “গোল্ডেন জুবলী অ্যাওয়ার্ড-২০২১” পদক পেলেন সিনিয়র সাংবাদিক এস মিজানুল ইসলাম দেশ ও জাতির সংকটে রুদ্রের কবিতা হয়ে উঠেছে তারুণ্যের হাতিয়ার – স্বরণানুষ্টানে বক্তারা শক্তি দিয়ে নয় মানুষের ভালবাসা দিয়ে জয়ী হতে চাই – চেয়ারম্যান প্রার্থী আরেফিন চৌধুরীর গোদাগাড়ীতে নৌকার প্রার্থী সোহেলের পথ সভায় বৃষ্টি উপেক্ষা করে জনতার ঢল।
আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে তীব্র যানজটের আশঙ্কা

আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে তীব্র যানজটের আশঙ্কা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
ঢাকা-টাঙ্গাইল রোডের উত্তরাঞ্চলমুখী পরিবহনগুলোর একমাত্র পথ নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়ক। প্রতি বছর ঈদে ঢাকার সাভারের আশুলিয়ার নবীনগর থেকে গাজীপুরের চন্দ্রা পর্যন্ত দীর্ঘ ১৫ থেকে ১৬ কিলোমিটার ও ঢাকা-ইপিজেড মহাসড়কের আশুলিয়া বাজার থেকে বাইপাইল পর্যন্ত ১৮কিলোমিটার তীব্র যানজট লক্ষ করা যায়।

অন্যদিকে যানজট নিরসনে মানিকগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের পক্ষ থেকে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হলেও তা ফলপ্রসূ হয়নি। বিশেষ করে সড়কের বিভিন্ন স্থানে অবৈধভাবে গাড়ি পার্কিং, থ্রি হুইলারের অনিয়ন্ত্রিত চলাচল এবং চলমান সংস্কার কাজের জন্য যানজটের কারণে ভোগান্তি যেন ঈদ পূর্বাপর নয় যাত্রীদের নিত্যদিনের সঙ্গী বলে জানান কয়েকজন বাসযাত্রী।

মানিকগঞ্জ সওজ সূত্রে জানা যায়, ঈদে মানুষ যাতে নির্বিঘ্নে বাড়ি ফিরতে পারে সেজন্য বিভিন্ন সময় চার লেনের নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কে উন্নয়ন কাজ, কর্মকান্ড পরিচালনা করা হয়েছে, কিন্তু বর্ষার কারণে গত বছর এই সড়কের ইপিজেড থেকে ভলিভদ্র বাজার পর্যন্ত ৬০০ মিটার এলাকায় বিটুমিন উঠে গিয়ে ব্যাপক গর্তের সৃষ্টি হয়। ওই সময় সাময়িক সংস্কারের পর নতুন করে এ বছরের শুরুতে ফের সড়কটি সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হয়। ছয় মাসের প্রকল্পে ওই ৬০০ মিটার সড়কের ১৪ ইঞ্চি আরসিসি ঢালাইয়ের কাজ আগামী আগস্টে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখন শেষ হয়েছে। অন্যদিকে চার লেনের বাইরের ভলিভদ্র বাজার থেকে পুরোনো ইপিজেড পর্যন্ত প্রায় ৩০০ মিটার অংশের কাজ অসম্পন্ন রয়েছে।

মানিকগঞ্জ সওজের নয়ারহাট শাখার উপবিভাগীয় প্রকৌশলী আতিকুল্লাহ ভূঁইয়া সাংবাদিকদের জানান, ঈদে উত্তরাঞ্চলগামী পরিবহনগুলো যাতে যানজটে আটকে না পড়ে সেজন্য নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কের নতুন ইপিজেড থেকে ভলিভদ্র বাজার পর্যন্ত ৬০০ মিটার সংস্কারকাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু মূল চার লেন সড়কের বাইরের কিছু অংশের সংস্কারকাজ চলমান, যা খুব দ্রুত শেষ হবে বলে তিনি দাবি করেন।

অনেকেই বলেন, সমস্যা হলো, শুধু সড়কে খানাখন্দের কারণেই যানজট সৃষ্টি হয় না। এর জন্য দায়ী অবৈধভাবে সড়কের দুই পাশে পরিবহন পার্কিং ও পথচারীদের অসচেতনতা। তবে অবৈধভাবে গাড়ি পার্কিংয়ের বিষয়টি হাইওয়ে পুলিশের আওতাধীন হওয়ায় এ ব্যাপারে তাদের অবগত করা হয়েছে।

পরিবহন চালক ও যাত্রীদের অভিযোগ, আশুলিয়া ক্ল্যাসিক, ঠিকানা, ওয়েলকাম, মৌমিতা, ইতিহাস, মোহনা, আলিফসহ বিভিন্ন পরিবহনের প্রায় ৪০০ গাড়ি এই সড়কে চলে। প্রভাবশালী নেতা ও হাইওয়ে পুলিশকে ম্যানেজ করে সড়কের বিভিন্ন স্থানে এসব পরিবহন পার্কিং করে রাখা হয়। এ কারণে বেশিরভাগ সময় চার লেনের সড়ক হওয়া সত্ত্বেও এখানে যানজট লেগেই থাকে। আর প্রতি বছর ঈদ এলেই ভোগান্তি চরমে পৌঁছায়। এমনকি বেপরোয়া গতিতে চলমান এসব পরিবহন হঠাৎ মাঝপথে থেমে গিয়ে যাত্রী ওঠাতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। অথচ এই বেখেয়ালিপনার কারণে ওই পরিবহনের পেছনে থাকা গাড়িগুলোকেও অযথাই থেমে থাকতে হয়।

ঢাকার সাভার জোন এর ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আবুল হোসেন জানান, ভলিভদ্র থেকে পুরোনো ইপিজেড পর্যন্ত সড়কের কিছু অংশের কাজ এখনও শেষ হয়নি। এ কারণে প্রতিনিয়ত যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। আর ওই কাজ দ্রুত সম্পন্ন করা না গেলে ঈদে ঘরমুখো মানুষের তীব্র যানজটে পড়তে হতে পারে।
তিনি আরও জানান, নবীনগর-চন্দ্রা ও টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের সংযোগস্থল বাইপাইল ত্রিমোড়ে অবৈধ রেজিষ্ট্রি বিহীন অটোরিকশা ও মাহিন্দ্রর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় যানজটের মাত্রা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। এছাড়া এই জনবহুল ব্যস্ততম এলাকায় কোনো ট্রাক ও বাস টার্মিনাল না থাকাসহ অনিয়ন্ত্রিত কাঁচাবাজারের কারণে প্রতিদিন যানজট নিরসনে বেগ পেতে হচ্ছে তাদের। আর ঈদকে কেন্দ্র করে এই ভোগান্তি বাড়ে কয়েক গুণ।

ঢাকা জেলা ট্রাফিক পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুহাম্মদ শরীফুল ইসলাম জানান, এই সড়কের যানজট পুরোপুরি নিরসন করতে হলে এখানে স্থায়ীভাবে বাস ও ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণ করা জরুরি হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি বাইপাইল এলাকার কাঁচাবাজারের জন্যও দরকার নির্ধারিত স্থান। তবে সাময়িক ভাবে ঈদ যাত্রায় যাতে যানজট সৃষ্টি না হয় সে জন্য ঢাকা জেলা ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। তবে ঈদের ১০ দিন আগে থেকে তাদের তৎপরতা আরও বাড়বে। আর সড়কের দুই পাশে যাতে কেউ পরিবহন পার্কিং না করে সেজন্য নিয়মিত টহলরত অবস্থায় থাকবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পাশাপাশি এখন থেকেই অটোরিকশা ও মাহিন্দ্রা পরিবহন নিয়ন্ত্রণে তারা কাজ করছেন বলে তিনি জানান।

Please Share This Post in Your Social Media



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD