বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:২২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
বিশেষ সতর্কীকরন - "নতুন বাজার পত্রিকায়" প্রকাশিত সকল সংবাদের দায়ভার সম্পুর্ন প্রতিনিধি ও লেখকের। আমরা আমাদের প্রতিনিধি ও লেখকের চিন্তা মতামতের প্রতি সম্পুর্ন শ্রদ্ধাশীল। অনেক সময় প্রকাশিত সংবাদের সাথে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে। তাই যেকোনো প্রকাশিত সংবাদের জন্য অত্র পত্রিকা দায়ী নহে। নতুন বাজার পত্রিকা- বাংলাদেশের সমস্ত জেলা, উপজেলা, ক্যাম্পাস ও প্রবাসে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! বিস্তারিত: ০১৭১২৯০৪৫২৬/০১৯১১১৬১৩৯৩
সংবাদ শিরোনাম :
ফুলবাড়িয়া উপজেলা পরিষদের প্রথম সভা অনুষ্ঠিত অভিযান চলমান: আশুলিয়ায় তিতাস গ্যাসের অবৈধ সংযোগ বন্ধ হচ্ছে না কেন? পাইকগাছায় খেঁজুরের রস আহরণে ব্যস্ত গাছিরা রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হোসেন দিনাজপুরে লক্ষিত জন গোষ্ঠীর মাঝে সবজির চারা বিতরণে মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম স্বাদে অতুলনীয় আত্রাইয়ের নারীদের তৈরি কুমড়ো বড়ি মহেশপুরের ভারতীয় সীমান্ত থেকে এক বাংলাদেশীর লাশ উদ্ধার। নড়াইলের জয়পুর শ্রী তারক ধামে সন্ত্রাসী হামলায় মতুয়ারা আহত বিচারের দাবী র‌্যাব-১২’র পৃথক অভিযানে সিরাজগঞ্জের সদরে ইয়াবা ও ফেন্সিডিলসহ ০৩ জন মাদক কারবারী আটক তারাগঞ্জে বাস-পিকআপ মুখোমুখি সংঘর্ষ নিহত ১
বেনাপোলে বিজিবির পন্য আটক,প্রতিবাদে ধর্মঘটের ঘোষনা

বেনাপোলে বিজিবির পন্য আটক,প্রতিবাদে ধর্মঘটের ঘোষনা

আজিজুল ইসলাম,শার্শা প্রতিনিধিঃ
বেনাপোলে আমদানিকৃত পণ্য আটকের নামে বিজিবি ব্যবসায়ীদের হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। ভারত থেকে আমদানিকৃত পণ্য বেনাপোল কাস্টমসে শুল্ককরাদি পরিশোধ শেষে খালাসের পর বিজিবি তা আটক করলে তাৎক্ষনিকভাবে অনির্দিস্টকালের ধর্মঘটের যাওয়ার ঘোষনা দিয়েছে বন্দর ব্যবহারকারী ৭ টি সংগঠন।
গতকাল বুধবার সন্ধায় বিজিবির হয়রানি বন্ধে সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোশিয়েশন, আমদানি রফতানি কারক সিমিতি, ট্রাক মালিক সমিতি, ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতি, ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন, সিএন্ডএফ এজেন্ট স্টাফ এসোশিয়েশন, ও বন্দর শ্রমিক ইউনিয়ন এক জরুরি বৈঠকে বসে। শুল্ক কর পরিশোধকৃত পণ্য বিজিবি আটক করলে বিজিবির বিরুদ্ধে ধর্মঘট ডেকে বন্দর অচল করে দেওয়া হবে।
গত ২৪ মে মোস্তফা এন্ড ব্রাদার্স নামে ঢাকার এক আমদানি কারক ভারতে থেকে ৭১০ প্যাকেজ এসোটেড গুডস আমদানি করেন বেনাপোল বন্দর দিয়ে। যার বি/ই নাম্বার ২৯৭৮৭ তারিখ:Ñ ৩০/৪/১৮। পন্য চালানটি বন্দরে প্রবেশের পর কাস্টমস কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরী ২ টি দলে বিভক্ত করে পৃথক ভাবে মালামাল পরীক্ষা নিরীক্ষা করে মোট পণ্যের ওপর সাড়ে ৫ টন লোড দিয়ে অতিরিক্ত আরো ১ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় করে। কমিশনার তার বিচারিক কাজ সম্পন্ন শেষে ১০ লাখ টাকা জড়িমানা আদায় করে ৬টি ট্রাকে করে পন্য চালানটি খালাশ নেই। কাস্টমস বিজিবি যৌথ বাশ কল অতিক্রমের সাথে সাথে ৬টি ট্রাকই আটক করে বিজিবি সদস্যরা।
পরে বেনাপোল বিজিবি ক্যাম্পে ৭ দিন আটকে রেখে মালামাল পুনরায় পরীক্ষা করে আবারও ২ টন মাল বেশী পাওয়া যায় বলে আমদানিকারককে জানিয়ে দেয়া হয়। আমদানিকারক ও ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো ট্রাস্ক ফোর্সের মাধ্যমে ট্রাকের পন্য পুনরায় তল্লাশীর আবেদনে যশোর থেকে একজন মেজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে কাগজপত্র পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়। পরে মেজিস্ট্রেট জানান একবার কমিশনার কর্তৃক বিচারিক কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর আর একবার বিচার করা সম্ভব নয় বলে জানালে পন্য চালানটি বিজিবি ছেড়ে দেয়।
পরে বন্দর ব্যবহারকারীরা তাৎক্ষনিক সভায় সিদ্দান্ত নেই বিজিবি এককভাবে পন্যচালান আটক করলেই বেনাপোল বন্দরে তাৎক্ষনিক অনির্দিস্টকালের ধর্ম ঘটে যাওয়ার সিদ্দান্ত গ্রহীত হয়। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব শামসুর রহমান, বেনাপোল সিএন্ডএফ এজন্টস এসোশিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন, সাধারন সম্পাদক এমদাদুল হক লতা, সিনিয়ির সহ সভাপতি নুরুজ্জামান, আমদানি রফতানি কারক সমিতির সহ সভাপতি আমিনুল হক, ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতির যুগ্ন সাধারন সম্পাদক আব্দুল মোওালেব, সিএন্ডএফ কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মজিবর রহমান ও সাধারন সম্পাদক নাসির উদ্দিন।
বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোশিয়েশনের সাধারন সম্পাদক এমদাদুল হক লতা জানান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের এক আদেশে বলা হয় বিজিবি কোন অবস্থাতেই বৈধ রুটের কোন মালামাল আটক করতে পারেনা। তাদের দায়িত্ব চোরাচালানী পন্য আটক করা। রাজস্ব পরিশোধকৃত কোন পন্য বন্দর থেকে খালাশ গ্রহনের পর বিজিবি তা এককভাবে আটক করলেই তাৎক্ষনিকভাবে বেনাপোল বন্দরে অনির্দিস্টকালের জন্য ধর্মঘট পালন করা হবে।
কাস্টমস এর ডেপুটি কমিশনার সাইদ আহমেদ রুবেল জানান, বিজিবি আইন লংঘন করে বৈধ রুটের পন্য আটক করছে। যা কোন অবস্থাতেই গ্রহনযোগ্য নয়। বিজিবির এ ধরনের কর্মকান্ডে ব্যবসায়ীরা অন্য বন্দরে চলে গেছে। ফলে সরকারের রাজস্ব আয়ে ধ্বস নামতে শুরু করেছে।
৪৯ বিজিবির কমান্ডিং অফিসার লে.কর্নেল আরিফুল হক জানান, প্রতিদিন ৪/৫’শ ট্রাক বন্দর থেকে খালাশ হলেও আমরা মাত্র সন্দেহজনক ৮/১০ টি ট্রাক আটক করে তল্লাশী করি। এটা কোন হয়রানির মধ্যে পড়ে না। তাছাড়া যে সব পন্য আমরা তল্লাশী করি তাতে কিছু না কিছু অনিয়ম পাওয়া যায়।

Please Share This Post in Your Social Media



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© natunbazar24.com কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY AMS IT BD